• আজ রবিবার, ১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ২৮ নভেম্বর, ২০২১ ৷

কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে উত্তাল ভারত

india
❏ শুক্রবার, নভেম্বর ২৭, ২০২০ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ বিতর্কিত ৩টি কৃষি আইন প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত বিক্ষোভ-আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুমকি দিলো ভারতীয় কৃষকরা। ‘দিল্লি চলো’ ডাক দেওয়া আন্দোলনে উত্তর প্রদেশ, হরিয়ানা, উত্তরাখণ্ড, রাজস্থান, কেরালা এবং পাঞ্জাব থেকে দিল্লিতে জড়ো হচ্ছেন হাজার হাজার কৃষক-শ্রমিক।

এ ছয়টি রাজ্য থেকে বিভিন্ন মাধ্যমে দিল্লি প্রবেশের চেষ্টা করে বিক্ষোভ করছেন কৃষকরা। পথে পথে মিছিলে উত্তাল রাজপথ। তবে রাজ্য থেকে বের হতে গিয়ে ব্যাপক বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন আন্দোলনকারীরা।

শীত উপেক্ষা করেই ‘কৃষি আইন’ বাতিলের দাবিতে দিল্লিতে জড়ো হওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। কৃষক-শ্রমিকদের ঠেকাতে দিল্লির প্রবেশ দ্বারে বিপুল নিরাপত্তা সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এরই মধ্যে বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে।

আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, ধর্মঘটের সমর্থনে পশ্চিমবঙ্গে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই বাম ও কংগ্রেস সমর্থকরা বিভিন্ন এলাকায় যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। অধিকাংশ এলাকায় ট্রেন চলাচলে বিঘ্ন দেখা গেলেও মেট্রো চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। বেশিরভাগ কলকারখানা বন্ধ রয়েছে; যেগুলো খোলা রয়েছে সেখানেও শ্রমিক উপস্থিতি অন্যদিনের তুলনায় কম।

এরই মধ্যে হাজার হাজার কৃষক পাঞ্জাব, হরিয়ানা ও রাজস্থান থেকে দিল্লির পথে রওনা হয়েছেন। পরিস্থিতি মোকাবিলায় হরিয়ানায় বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোট সরকার পাঞ্জাবের সঙ্গে তাদের সীমান্ত সিল করে দিয়েছে।

আম্বালা, কুরুক্ষেত্র, হিসারে দেওয়া হয়েছে ব্যারিকেড। বিভিন্ন এলাকায় জারি হয়েছে ১৪৪ ধারা। গুরগাঁওয়ে কৃষক নেতাদের সঙ্গে স্বরাজ ইন্ডিয়ার প্রেসিডেন্ট যোগেন্দ্র যাদবকেও আটক করেছে পুলিশ।

এমন অবস্থায় যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কা করছে প্রশাসন। তবে সর্বশক্তি দিয়ে সহিংসতা মোকাবিলার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। দিল্লি সীমান্তে বহু পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। দিল্লিতে ঢোকার রেল যোগাযোগ সাময়িক সময়ের জন্য বন্ধ করে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

কেন্দ্রের কৃষি আইনের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া কৃষকদের ‘দিল্লি চলো’ আন্দোলন ক্রমশই কঠিন পরিস্থিতি তৈরি করছে।