ত্রিশালে বসতঘর পেয়ে খুশি ফজিলা খাতুন

◷ ১০:৪০ অপরাহ্ন ৷ রবিবার, নভেম্বর ২৯, ২০২০ ময়মনসিংহ
Trishal news

মামুনুর রশিদ, ত্রিশাল ( ময়মনসিংহ)  প্রতিনিধি: প্রায় ১৫ বছর আগে ৩ মেয়ে ও এক প্রতিবন্ধী ছেলে রেখে মারা যায় স্বামী উমর আলী। স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে ভিটেমাটি ও সম্বলহীন পরিবারটি গ্রামে গ্রামে ভিক্ষাবৃত্তি করে কোন রকম ভাবে পরিবারটি চলে আসলেও একটি ছোট টিনশেট ঘরে পরিবারের ৫ সদস্য নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করে আসছিলো মোছাঃ ফজিলা খাতুনের পরিবার। সামাজিক ও জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও একটি থাকার ঘর পাননি তিনি। অবশেষে স্বরনাপন্ন হলেন ত্রিশালের সেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন রকিব ওয়েল ফেয়ারথর।

স্থানীয় সূত্র জানায়, প্রায় ১৫ বছর আগে ৩ মেয়ে ও একজন প্রতিবন্ধি ছেলে রেখে মারা যান ফজিলার স্বামী উমর আলী। স্বামীর মৃত্যুর পর মোছাঃ ফজিলা খাতুন প্রতিবন্ধি ছেলেকে সাথে নিয়ে গ্রামে গ্রামে ঘুরে ভিক্ষাবৃত্তি করে কোন রকম জীবন যাপন করছিল। ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবন চললেও থাকারমত ছিলনা তেমন কোন বসত ঘর। একটি ঘরের জন্য ফজিলা খাতুন সমাজপতিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরলেও পাননি একটি ঘর। অবশেষে তিনি স্বরনাপন্ন হলেন ত্রিশালের সেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন রকিব ওয়েল ফেয়ারথর।

ওয়েল ফোয়ারের সমন্বয়ক মিনহাজ ফাউন্ডেশনের সদস্য বিরাজকে দায়িত্ব দেন ফজিলা খাতুনের খবরাখবর নেওয়ার জন্য। যাচাই বাছায়ে প্রাপ্যতা অনুযায়ী অগ্রাধীকার ভিত্তিতে দ্রুত একটি বসতঘর ফজিলা খাতুনকে করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় রকিব ওয়েল ওয়েল ফেয়ার ফাউন্ডেশন। দ্রুত গতিতে ঘর নির্মানের কাজ শুরু হয়ে শেষ হয় গত বৃহস্পতিবার।

গত শনিবার ফজিলা খাতুনের বাড়ী গিয়ে নব নির্মিত ঘরের চাবী ফজিলা খাতুন ও তার প্রতিবন্ধি ছেলের হাতে তোলে দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান। ঘর পেয়ে খুশি হয়েছেন ফজিলা খাতুন ও তার প্রতিবন্ধি ছেলে।

এসময় উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান, রকিব ওয়েল ফেয়ার ফাউন্ডেশনের মিনহাজ উদ্দিন, ডা. মনোয়ার, তপন সাহা, বিরাজ, শরীফ, রোকন, তারেক, মিল্টন, উজ্জল, মানিক আচার্য্য, গৌতম দে, শোশারফ হোসেন, সানোয়ার, সুজন, জসিম উদ্দিন, রঞ্জন সরকার, সাংবাদিক জোবায়ের হোসাইন, সিফাত আকন্দ প্রমূখ।

ফজিলা খাতুন জানান, অনেক দিন যাবত ঘরের জন্য অনেক কষ্ট করে রাত যাপন করে আসছিলাম, আজ থেকে আমাদের এ কষ্টটা শেষ হলো। খাবারের সন্ধানে ভিক্ষাবৃত্তি করে কোন প্রকার জীবন যাপন করছি, সেখানে একটি থাকার করা ছিল স্বপ্নেরমত। তিনি রকিব ওয়েল ফেয়ার ফাউন্ডেশনের সকলের জন্য দোয়া করেন।

রকিব ওয়েল ফেয়ার ফাউন্ডেশনের পরিচালক মিনহাজ জানান, আমাদের ফাউন্ডেশনের অসহায় দরিদ্রদের জন্য গৃহ নির্মাণ প্রকল্পের এটি ৪ নম্বর প্রকল্প। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে প্রত্যেক সদস্যই অনেক অবদান রেখেছেন। আগামীতে আমরা সমাজিক কর্মকান্ডে আরো এগিয়ে যেতে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, নিঃসন্দেহে এটি একটি ভাল কাজ, এসকল কাজে সকলকে এগিয়ে আসা উচিত।