চাঁদপুর টু কক্সবাজার চালু হলো বিআরটিসি এসি বাস

◷ ৩:৪২ অপরাহ্ন ৷ বুধবার, ডিসেম্বর ২, ২০২০ চট্টগ্রাম
bus

মাহফুজুর রহমান, চাঁদপুর প্রতিনিধি- বিপুল উৎসাহ, উদ্দীপণা ও আনন্দঘন পরিবেশে পর্যটনের অন্যতম নগরী চাঁদপুর-টু-কক্সবাজার রুটে চালু হলো বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিসি) এসি সার্ভিসের বাস। এতে করে চাঁদপুরবাসীর দীর্ঘদিনের চাওয়া-পাওয়া পূরণ হলো।

বহুল আকাঙ্খিত এই বাসটি ২রা ডিসেম্বর (বুধবার) দুপুরে চাঁদপুর বাস স্ট্যান্ডে উদ্বোধন করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) অসিম চন্দ্র বণিক।

এসময় তিনি বলেন, ‘এই সার্ভিসটি চালুর মাধ্যমে পর্যটনের দুই নগরীর সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক বেড়ে গেলো এবং চাঁদপুর টু কক্সবাজার ভ্রমণপিপাসুদের আসা-যাওয়া এখন নিয়মিত বিষয় হয়ে যাবে। একই সাথে কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম থেকে চাঁদপুর ভ্রমণেও ব্যতীক্রম হবে না। বিশেষ করে চাঁদপুরবাসীর জন্য কক্সবাজার ভ্রমণ এবার অনেক সহজ, সাশ্রয়ী ও আরামদায়ক হবে। আমরা পর্যটনের এই দুই নৈসর্গিক নগরীকে সুন্দর-সুশৃঙ্খল করতে কাজ করে যাবো ’

এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মো.আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান ও কুমিল্লা বিআরটিসি বাস ডিপোর ম্যানেজার অপারেশন মো.কামরুজ্জামান, পরিচালক মেহেদী হাসান রাব্বি ও মো. ফেরদৌস গাজী উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, আনুষ্ঠানিকভাবে এ রুটে (ঢাকা-মেট্টো ১৫-৫৯৯৯ ৪৫) সিটের বাসটি প্রতিদিন রাত ৮টায় কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। চট্টগ্রামে যাত্রা বিরতি দিয়ে ভোরে কক্সবাজার পৌঁছাবে।

প্রতিদিন বেলা সাড়ে ১১টায় কক্সবাজার থেকে বাসটি চাঁদপুরের উদ্দেশ্যে ছাড়বে। চট্টগ্রামে যাত্রা বিরতি দিয়ে রাতে পৌঁছাবে চাঁদপুরে।

চাঁদপুর কাউন্টারের দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন কর্মকর্তা জানান, এ সার্ভিসে জনপ্রতি যাওয়া-আসা একবারের ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ৮শ’ টাকা। চাঁদপুর থেকে থেকে কক্সবাজার যেতে ও সেখান থেকে চাঁদপুর আসতে প্রায় ৭ ঘন্টা সময় লাগবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

টিকেট ও অন্যান্য বিষয়ে জানার জন্য ০১৭১২-৮৫৭ ১৮৭ মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

উদ্ধোধণকালে উপস্থিত খুশিতে আত্নহারা ঢাবি শিক্ষার্থী মোর্শেদ আলম জানান, চাঁদপুর থেকে এবার বন্ধু-বান্ধবদের সাথে সহজেই কক্সবাজার ঘুরতে যেতে পারবো। কক্সবাজারের বন্ধুরাও ইলিশের শহর ঘুরে দেখতে পারবে। আগে গ্যাপে গ্যাপে যাওয়ায় ভয়ে অনেকে সাধ্য থাকার পরও হয়রানির ভয়ে সমুদ্রনগরী কক্সবাজারে যেতে চাইতো না। এবার এসি বাসে ভ্রমণটা আরো আরামদায়ক এবং সহজ হলো’।