সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মির্জাপুরে মেয়র পদে আ. লীগের মনোনয়ন চান ৬ জন

মনোনয়ন

মো.সানোয়ার হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি- আসছে নতুন বছরের তৃতীয় কিংবা চতুর্থ ধাপে টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে উপজেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানা গেছে।

মির্জাপুর পৌর নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী রাজোর প্রচেষ্টা শুরু করে দিয়েছেন। দলীয় প্রার্থী নিশ্চিত করার লক্ষ্যে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগ ইতিমধ্যে বাছাই কার্যক্রম শুরু করেছে বলে নির্ভরযোগ্য সুত্র নিশ্চিত করেছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জানান, টাঙ্গাইল-০৭ আসনের সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো.একাব্বর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মীর শরীফ মাহমুদ, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরহাদ উদ্দিন আছু, সাধারণ সম্পাদক মো. আলম মিয়ার যৌথ স্বাক্ষরিত একটি প্যাডে ০৬ প্রার্থীর তালিকা তৈরি করে মঙ্গলবার (০৮ ডিসেম্বর) টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগ বরাবর পাঠানো হয়েছে।

দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন- বর্তমান মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা সালমা আক্তার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ্যাড. মোশারফ হোসেন মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মাজহারুল ইসলাম শিপলু, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরহাদ উদ্দিন আছু, পৌর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য শহীদুর রহমান শহীদ ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হাজীআবুল হোসেন।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম খান মুঠোফোনে বলেন, মির্জাপুর পৌরসভার মেয়র পদে উপজেলা থেকে ৬ প্রার্থীর নামের তালিকা হাতে পেয়েছি। যাচাই-বাছাই করে দু’একদিনের মধ্যে তাদের নামের তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হবে।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে প্রথম পৌর মেয়র নির্বাচনে আবুল কাশেম কাচ্ছেদ ও শহীদুর রহমান শহীদকে পরাজিত করে মেয়র নির্বাচিত হন মোশারফ হোসেন মনি। ২০১১ সালে দ্বিতীয় নির্বাচনে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কাউন্সিলরদের ভোটের মাধ্যমে নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য মনোনীত হন প্রয়াত সুমন।

তবে কাউন্সিলরদের ভোটে পরাজিত হয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে সেই নির্বাচনে মোশারফ হোসেন মনিও নির্বাচনে অংশ নেয়। উক্ত নির্বাচনে সর্বদলীয় নাগরিক ঐক্যের ব্যানারে নির্বাচন করে মেয়র নির্বাচিত হন শহীদ। তবে ২০১৫ সালে তৃতীয় নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীকে হযরত আলী মিয়াকে পরাজিত করে নৌকা প্রতীকে মেয়র নির্বাচিত হন প্রয়াত মেয়র সুমন।

চলতি বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি (মঙ্গলবার) রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন মেয়র সুমন। মেয়র পদ শূন্য হওয়ার পর উপ-নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় প্রয়াত মেয়র সুমনের সহধর্মিনী সালমা আক্তার মেয়র নির্বাচিত হন।

উপজেলা নির্বাচন অফিসের তথ্যমতে এ পৌরসভায় মোট ভোটার সংখ্যা ২১ হাজার ৬শত ৫২ জন। এরমধ্যে পুরুষ ১০ হাজার ০১শত ৯১ ও নারী ভোটার ১১ হাজার ০৪ শত ৬১ জন।

◷ ১২:২৮ অপরাহ্ন ৷ বুধবার, ডিসেম্বর ৯, ২০২০ ঢাকা