সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ময়মনসিংহে পুত্রবধূকে জমি লিখে দিয়ে শাশুড়ীই ঘরছাড়া!

◷ ৬:৫১ পূর্বাহ্ন ৷ সোমবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০২০ ময়মনসিংহ
Mymensing news

কামরুজ্জামান মিন্টু, ময়মনসিংহঃ ময়মনসিংহের ধোবাউড়ায় হাফিজা খাতুন (৭০) নামে এক বৃদ্ধা পুত্রবধূকে নিজের ঘরের জমি লিখে দিয়ে সর্বশান্ত হয়েছেন। প্রায় সাত মাস যাবত থাকছেন অন্যের বাড়ীতে। শেষ বয়সে নিজের ঘরে আবারও ফিরে আসতে চাচ্ছেন এই বৃদ্ধা মহিলা। কিন্তু পুত্রবধূর কাছে নিরুপায় তিনি।

উপজেলার বাঘবেড় ইউনিয়নের চন্দ্রপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে। অভিযুক্ত ওই গৃহবধূর নাম রহিমা খাতুন (৩৮)। গত পনের বছর আগে হালিম উদ্দিনের সাথে তার বিয়ে হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বৃদ্ধা হাফিজার ছেলে হালিম উদ্দিনের সাথে একই গ্রামের রহিমার বিয়ে হয় পনের বছর আগে। পারিবারিক কলহের জেরে একপর্যায়ে তাদের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। তাদের ঘরে ৩ সন্তান থাকায় ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে হালিম উদ্দিনের মা ছেলের স্ত্রীকে আবার ঘর সংসারের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু গৃহবধূ ১৫ শতাংশ জমির বিনিময়ে আসতে রাজী হয়। শাশুড়ীও জমি দিবে বলে জানায়। এরপর ছেলে হালিম উদ্দিনকে দিয়ে আবার বিবাহ করিয়ে জমি দিতে গেলে ছেলের স্ত্রী অন্য জমির পরিবর্তে বসত ভিটা প্রতারণা করে লিখে নেয়। পরবর্তিতে কয়েক মাস পর ছেলের বউ শাশুড়ীকে তার বাড়ি থেকে বের করে দেয়। বৃদ্ধা শাশুড়ী এখন সর্বশান্ত হয়ে ৭ মাস ধরে অন্যের বাড়িতে বসবাস করছে।

এ বিষয়টি গৃহবধূ রহিমার কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমার শাশুড়ী আমার কাছে বাড়ি বিক্রি করে দিয়েছে। তিনি কোথায় থাকবে সেটা তার বিষয়। এতে আমার কিছু করার নেই।

বৃদ্ধার ছেলে হালিম উদ্দিন জানান, আমি মূর্খ মানুষ। দলিল লেখক খোকন সরকার আমার স্ত্রীর কাছ থেকে টাকা খেয়ে আমার মায়ের সাথে প্রতারণা করেছে।

এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ফরহাদ রব্বানী সুমন বলেন, আমি গ্রামের স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে একাদিকবার শালিস করেছি। ছেলের বউকে বসত বাড়ির পরিবর্তে অন্য জায়গায় জমি দেয়ার কথা বললে ছেলের বউ রাজি হয়নি। এমতাবস্থায় বৃদ্ধা হাফিজা খাতুন বসত বাড়ি ফিরে পেতে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।