সংবাদ শিরোনাম

গাজীপুর ডিবি পুলিশের অভিযানে ১৫০১ পিস ফেনসিডিল উদ্ধার, গ্রেফতার-২কক্সবাজার দুই উপজেলায় পানি সংকটে কৃষকদের হাহাকার, বাঁধ নির্মাণে নানা অনিয়মবেলকুচিতে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান সম্পর্কে প্রেস ব্রিফিংদম্পত্তির অন্তরঙ্গ ভিডিও ধারণ করতে গিয়ে জেলহাজতে ছাত্রলীগ সম্পাদকপদ্মা নদীতে ভ্রমণতরীর উদ্বোধন করলেন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলীসবকিছু ছবি তুলে ফেসবুকে দিতে হয় না : আজহারীজামালপুরে ট্রেনের ধাক্কায় হাসপাতাল ওয়ার্ড বয়ের মৃত্যুবাগেরহাটে হস্তান্তরের শেখ হাসিনার উপহার ৪৩৩টি ঘর পাবনায় মায়ের পান আনতে গিয়ে শ্লীলতাহানির শিকার কলেজ ছাত্রী !শেরপুরে ফাঁসিতে ঝুলে যুবকের আত্মহত্যা

  • আজ ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

উইঘুর মুসলিম নির্যাতনের অভিযোগ আন্তর্জাতিক আদালতে প্রত্যাখ্যান

◷ ৪:০১ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০২০ আন্তর্জাতিক
CHINA-UIGHURS-

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ চীনের জিনজিয়াংয়ে বাস করা সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিমদের বিরুদ্ধে সংঘটিত গণহত্যা এবং মানবতাবিরোধী অপরাধ তদন্তের জন্য আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে যে আবেদন করা হয়েছিল সেটি প্রত্যাখান করে দেওয়া হয়েছে।

জিনজিয়াং থেকে নির্বাসিত উইঘুর মুসলিমরা আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে চীন সরকারের বিরুদ্ধের তদন্ত করার জন্য এই আবেদন জানিয়েছিলেন। তবে সোমবার আন্তর্জাতিক আদালতের পক্ষ থেকে একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে যে প্রসিকিউটররা এটি প্রত্যাখান করে দিয়েছে।

গত জুলাই মাসে উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে চীনের বিরুদ্ধে আইসিসিতে অভিযোগ জানানো হয়। অভিযোগে তারা উল্লেখ করে, চীনে ১০ লাখের বেশি উইঘুর মুসলিমসহ অন্যদের বন্দী করে স্বাভাবিক জীবন থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে। এসব অভিযোগের পক্ষে প্রমাণও জমা দিয়েছে তারা।

তবে আইসিসির আইনজীবী ফাতো বিনসুদা বলেন, ‘এই অভিযোগ নিয়ে তারা কাজ করতে পারবে না, কারণ অভিযোগে উল্লেখ করা ঘটনা ঘটেছে চীনে, যা হেগ ভিত্তিক আন্তর্জাতিক আদালতের চুক্তিভুক্ত অঞ্চল নয়।

আইসিসির বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উইঘুর মুসলিমদের ওপর নির্যাতনের বেশিরভাগ অভিযোগ নিয়ে কাজ করার আঞ্চলিক এখতিয়ার এই আদালতের শর্তের মধ্যে পড়ে না। এছাড়া তাজিকিস্তান এবং কম্বোডিয়া থেকে উইঘুরদের জোরপূর্বক চীনে নির্বাসনের আরেকটি অভিযোগ নিয়ে কাজ করার ‘কোনো ভিত্তি এই মুহূর্তে ছিল না’ বলে জানায় তারা।

আসিসির আইনজীবীদের কাছে দায়ের করা অভিযোগ নিয়ে কাজ করার বাধ্যবাধকতা তাদের নেই। কোনো ঘটনা আদালতের বিচারকের কাছে তুলে ধরার ক্ষেত্রে তারা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারেন।

তবে উইঘুর সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তাজিকিস্তান এবং কম্বোডিয়ায় উইঘুর মুসলিমদের জোরপূর্বক নির্বাসনের ঘটনা ঘটেছে। দুটি দেশই আইসিসির সদস্য। তাই আইসিসি এই অভিযোগ নিয়ে কাজ করতে পারতো।