৭১’র পরাজিত শক্তি ধর্ম নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

hasina

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ ৭১-এর পরাজিত শক্তি মিথ্যা, মনগড়া বক্তব্য দিয়ে ধর্মপ্রাণ মুসলমানের মনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। সমাজে অশান্তি সৃষ্টিই তাদের উদ্দেশ্য বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার বানিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি করা এসব গোষ্ঠীকে হুঁশিয়ার করে শেখ হাসিনা বলেছেন, ধর্মের নামে সমাজে কোনো বিভেদ-বিশৃঙ্খলা করতে দেয়া হবে না।

মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে তিনি এ অভিযোগ করেন। এ সময় তার পেছনে শোভা পাচ্ছিল সর্ষেক্ষেত আর গ্রাম বাংলার ছবি। ভাষণটি বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালে বলেছিলেন ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার না করতে। কিন্তু ধর্মকে ব্যবহার করেই এই অপশক্তি সমাজে অশান্তি সৃষ্টি করতে চাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা শুধু একজন খাঁটি মুসলমানই ছিলেন না, তিনি ধর্মীয় আচারাদি নিষ্ঠার সঙ্গে প্রতিপালন করতেন। তিনি যখন সংবিধান রচনা করেন, তখন মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটিয়ে বাঙালি জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতা, গণতন্ত্র ও সমাজতন্ত্র—এই চারটি মৌলিক বিষয়কে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি হিসেবে গ্রহণ করেন।’

‘কিন্তু দুঃখের বিষয়, ৭৫-পরবর্তী মুক্তিযুদ্ধের আদর্শবিরোধী সরকারগুলো মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত মূল্যবোধগুলোকে জলাঞ্জলি দিয়ে রাষ্ট্র ক্ষমতায় নিজেদের আসন চিরস্থায়ী করার পদক্ষেপ গ্রহণ করে। সামরিক জান্তা সঙ্গিনের খোঁচায় সংবিধানকে ক্ষতবিক্ষত করে। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ধারাবাহিক অপপ্রচার চালিয়ে, ইতিহাস বিকৃত করে, আওয়ামী লীগ এবং বঙ্গবন্ধু পরিবারের বিরুদ্ধে কালিমা লেপনের চেষ্টা করে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ ধর্মপ্রাণ, ধর্মান্ধ নয়। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান—সব ধর্মের-বর্ণের মানুষের রক্তের বিনিময়ে এ দেশ স্বাধীন হয়েছে। বিজয় দিবসের প্রাক্কালে তাই আসুন, আবারও আমরা শপথ নিই— আমরা যেন লাখো শহীদের রক্তের ঋণ ভুলে না যাই। আমরা যেন মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক চেতনা ভূ-লুণ্ঠিত হতে না দেই।’

‘যুবশক্তি, তরুণ সমাজ এবং নতুন প্রজন্মের কাছে অনুরোধ, তোমরা তোমাদের পূর্বসূরিদের আত্মোৎসর্গের কথা কখনও ভুলে যেও না। তাঁদের উপহার দেওয়া লাল-সবুজ পতাকার অসম্মান হতে দিও না। যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে তোমরা তোমাদের পূর্বপুরুষদের বিজয়-নিশান সমুন্নত রাখার শপথ নাও, এই বিজয় দিবসে। প্রতিজ্ঞা করো—মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে এ দেশকে সোনার বাংলাদেশে পরিণত করবে। তবেই ৩০ লাখ শহীদের আত্মা শান্তি পাবে। জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ হবে।’

◷ ৯:০৭ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০২০ জাতীয়
আগামীকাল একটি সুখবর দেবেন প্রধানমন্ত্রী

⊡ শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১

হুইল চেয়ারে ফখরুল, বললেন ‘আই অ্যাম সিক’

⊡ শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১

bnp ৩০ মার্চ ঢাকায় মহাসমাবেশের ঘোষণা বিএনপির

⊡ বুধবার, ফেব্রুয়ারী ২৪, ২০২১

rehana করোনার টিকা নিলেন শেখ রেহানা

⊡ বুধবার, ফেব্রুয়ারী ২৪, ২০২১