সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে আতঙ্কিত : ভিপি নুর

◷ ৬:১০ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ২২, ২০২০ জাতীয়
ভিপি নুর

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- বর্তমান সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে আতঙ্কিত বলে মন্তব্য করেছেন ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরু। মঙ্গলবার রাজধানীর পুরান পল্টন মোড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ ঢাকসুতে হামলার এক বছর পূর্তি ও বিচারহীনতার প্রতিবাদে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন।

নুরুল হক নুরু বলেন, ‘ডান-বাম সব রাজনৈতিক সংগঠনের ভাইদেরকে বলবো এই সরকার ভীত সন্ত্রস্ত ও ক্ষমতা হারানোর ভয়ে আতঙ্কিত। তাই তারা আজকে জনগণের মিটিংকেও নিয়ন্ত্রণ করতে চায়।’

তিনি বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন এই ডিএমপিতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আমরা ডিএমপির কোনো অনুমতি নিয়ে আজকের সমাবেশ করিনি। আমরা কোনো প্রকার সভা-সমাবেশ করার জন্য এই অবৈধ ভোটারবিহীন সরকার বা ডিএমপির অনুমতির ধার ধারি না। সংবিধান আমাদেরকে সভা-সমাবেশ ও মিটিং মিছিল করার অধিকার দিয়েছে। সেটা ভোটারবিহীন সরকার কেড়ে নেয়ার কে?

তাই আমি সব রাজনৈতিক দলকে বলব সভা-সমাবেশ করার জন্য এই ভোটারবিহীন সরকার বা ডিএমপির কোনো অনুমতি নিবেন না। যদি আপনারা এই সরকারের অনুমতি নিয়ে সভা-সমাবেশ করেন, তাহলে আমরা মনে করব আপনারা স্বৈরাচারের আইন-কানুন মানছেন এবং স্বৈরাচারকে প্রশ্রয় দিচ্ছেন।’

নুর বলেন, ‘সরকার এখন বুঝতে পেরেছে, চতুর্দিক থেকে জনগণ ফুসে উঠেছে। তাই তারা বেপরোয়া হয়ে গেছে। এই বায়তুল মোকাররমে আলেম ওলামাদের উপর কিভাবে হামলা চালিয়েছে। ওয়াজ মাহফিলের মাধ্যমে মানুষ ধর্মীয় শিক্ষা লাভ করে, মানুষ সংশোধন হয়, আলেম ওলামাদের হাত ধরে তওবা করে, গুনাহ এর পথ থেকে ফিরে আসে। কিন্তু এই সরকার আজকে ভাষ্কর্য নাটক তৈরি করে সারা বাংলাদেশে আলেমদের ওয়াজ মাহফিল বন্ধ করে দিয়েছে।’

সরকার পশ্চিমাদের দেখানোর জন্য সুপরিকল্পিতভাবে ইসলাম বিদ্বেষ তৈরি করছে মন্তব্য করে নুর বলেন, “সরকার আলেম ওলামাদের কাঠ মোল্লা, জঙ্গি, জামায়াত-শিবির বলে নানা ভাষায় গালি দিচ্ছে। আমরা দেখি এই নগরের বিনা ভোটের মেয়র আলেম ওলামাদের কটাক্ষ করে বলেন, ‘তোমাদের বাপ-মা পিটাইয়া মাদ্রাসায় পাঠাইছে তাই তোমরা আলেম হইছো। আমি ঘরে বসে আলিফ, বা, তা, ছা শিখে অনেক শিক্ষিত হয়েছি।’ আমি বলবো তুমি জালেমে পরিনত হয়েছো। আজকে আলেমদের বিরুদ্ধে তোমরা অবস্থান নিয়েছো।”

তিনি বলেন, ‘এদেশের সকল অসম্প্রদায়িক জনগণকে বলবো, ভোটারবিহীন অবৈধ সরকারের ফাঁদে পা দেয়া যাবে না। তারা বিভিন্ন সময়ে জঙ্গি নাটক করে পশ্চিমাদের সাহায্য নেয়ার চেষ্টা করেছে। পশ্চিমাদের বুঝিয়েছে এদেশে উগ্র ইসলামবাদ আছে। সেজন্য বিভিন্ন জঙ্গি অপারেশনের নাটক সাজিয়েছে।’

নুর বলেন, ‘ইউরোপ, আমেরিকা যখন এই সরকারকে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য চাপ দিয়েছে, তখন এই পশ্চিমাদের দেখানোর জন্য ভাষ্কর্য নাটক তৈরি করে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী পাণ্ডাদের মাঠে নামিয়ে দেয়া হয়েছে।’

এর আগে কোটা সংস্কারের দাবিতে গড়ে ওঠা বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ ডাকসু হামলার এক বছর উপলক্ষে ‘বিচারহীনতার বিরুদ্ধে কালো পতাকা মিছিল’ শীর্ষক কর্মসূচির আয়োজন করে। কর্মসূচির অংশ হিসেবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়। সেখান থেকে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতাকর্মীরা রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে কিছুক্ষণ অবস্থান করেন। পরে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে শাহবাগ হয়ে পল্টন মোড়ে এসে অবস্থান নেন। পল্টনে এসে প্রায় আধা ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে রাখেন তারা।