চাটমোহরে আ. লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীকে মারধরের অভিযোগ

◷ ৬:৫০ অপরাহ্ন ৷ বুধবার, ডিসেম্বর ২৩, ২০২০ রাজশাহী
news photo

আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি- আসন্ন আগামী ২৮ ডিসেম্বর চাটমোহর পৌরসভা নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে পৌরসভা এলাকায় নির্বাচনের উত্তাপ আর উৎকণ্ঠা ততই বাড়ছে। আর এই উত্তাপ ক্রমশ সহিংসতায় রূপ নিচ্ছে।

মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) রাত ১০টার পরে পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম দুলাল মির্জাকে শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত ও মারপিটের অভিযোগ উঠেছে নৌকার সমর্থকদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার পরেই মেয়র প্রার্থী দুলাল মির্জা প্রশাসনকে মৌখিকভাবে অবহিত করেছেন এবং আজ (বুধবার) একটি লিখিত অভিযোগ দিবেন বলে জানিয়েছেন।

তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নৌকা প্রতিকের মেয়র প্রার্থী এ্যাড. সাখাওয়াত হোসেন সাখো।

ঘটনার বিষয়ে মেয়র প্রার্থী মির্জা রেজাউল করিম দুলাল মির্জা বলেন, মঙ্গলবার রাত ১০ টার দিকে থানা বাজার আমতলা মোড়ে নেতা কর্মীদের সাথে আমি কথা বলছিলাম। এমন সময় পাবনা থেকে আগত কিছু যুবক ও স্থানীয় যুবলীগের চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা প্রথমে আমাকে লক্ষ করে অকথ্য ভাষায় বকাবকি করতে থাকে। এরপর তারা সংঘবদ্ধ হয়ে আমার ওপড় হামলা করে মারপিট করে। আমাকে লাঠি দিয়ে মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করেছে তারা।

এসময় কিছু নেতা কর্মী আমাকে সেখান থেকে সরিয়ে অন্যত্র নিয়ে যায়। পরেই আমি থানার ওসি, সার্কেল এসপি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে মৌখিক ভাবে জানিয়েছি। আজ বুধবার থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করবো। এই হামলাটি একদম পরিকল্পিতভাবে বহিরাগত নৌকা প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা করেছে।

এ বিষয়ে চাটমোহর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নৌকা প্রতিকের মেয়র প্রার্থী এ্যাড. সাখাওয়াত হোসেন সাখো বলেন, আমার ২০ বছরের সভাপতি পদে থাকার আগে ও পরে কোনদিন কাউকে আঘাত করে নির্বাচন করিনি। মির্জা সাহেবের উপর আমার কোন লোক হামলা করেনি। তবে আমি শুনেছি তিনি নির্বাচন উপলক্ষে বিভিন্ন মানুষের মাঝে মাদক ও টাকা বিলি করছেন। এই মাদক সেবিদের মধ্যে কেউ তাকে আক্রমন করে থাকতে পারে।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারি পুলিশ সুপার (চাটমোহর সার্কেল) সজীব শাহরীন বলেন, মেয়র প্রার্থী দুলাল মির্জা রাতে আমাকে ফোন দিয়ে জানিয়েছেন। তবে এখন পর্যন্ত আমরা কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সৈকত ইসলাম বলেন, চাটমোহরের নির্বাচন পরিস্থিতি খুবই ভালো। কোন দূর্ঘটনা নেই। কোন লিখিত অভিযোগ আমরা পাইনি। যদি কেউ লিখিত অভিযোগ দেয় তাহলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।