৫২, ৭১, ৯০-এর মতো আরেকবার ত্যাগ স্বীকার করতে হবে: নুর

◷ ১০:২৫ অপরাহ্ন ৷ বুধবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০২০ ঢাকা
nur

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, পৃথিবীর ইতিহাসে রক্ত এবং ত্যাগ ছাড়া কোনো আন্দোলন সফল হয়নি, অধিকার আদায় হয়নি। তাই দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় ৫২, ৭১, ৯০-এর মতো আরেকবার আপনাদেরকে ত্যাগ স্বীকার করতে হবে।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে দিনটিকে ‘ভোটাধিকার হরণ দিবস’ আখ্যা দিয়ে দুপুরে কালো পতাকা মিছিল করে ছাত্র, যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদ।

মিছিলটি রাজধানীর পুরানা পল্টন মোড় থেকে শুরু হয়ে কাকরাইল, মৌচাক, মগবাজার ও হাতিরঝিল মোড় হয়ে কারওয়ান বাজার মোড়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে। এ সময় নুর এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, ভারতের মদদে ১/১১-এ নীলনকশার মাধ্যমে দেশের গণতন্ত্র ধ্বংস করে একদলীয় স্বৈরশাসন কায়েম করা হয়েছে। ভারতের উগ্র হিন্দুত্ববাদী মোদি সরকারের মদদে ২০১৪ সাল ও ১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে ভোট ডাকাতির নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় আছে।

স্বৈরাচারী সরকারের কাছে দেশে আজ কেউই নিরাপদ নয়, সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি খুন হয়েছে, পুলিশ সেনাবাহিনীর একজন মেজরকে গুলি করে মারল, ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা আবরার, বিশ্বজিতের মতো অসংখ্য মানুষকে হত্যা করেছে।

তাই ছাত্র, যুব, শ্রমিক অধিকার পরিষদের নেতৃত্বে দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা এবং মুক্তিযুদ্ধের আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশ গড়তে গণ-আন্দোলন গড়ে তুলুন।

বর্তমান ভোটারবিহীন অবৈধ সরকারের সময় শেষ হয়ে আসছে। জনগণকে রাজপথে নামতে হবে। জনগণ রাজপথে নামলে স্বৈরাচার ও তার দোসররা দেশ ছেড়ে পালাবে।

এ সময় বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রাশেদ খান বলেন, ‘আজকে এমন একটা দিনে আমরা রাজপথে কর্মসূচি পালন করছি, যেদিন এই ভোট ডাকাত সরকার, মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে। আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে ভোট ডাকাত সরকারকে হটিয়ে জনগণের সরকারকে ক্ষমতায় বসাতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ ছাত্র-অধিকার পরিষদ, যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদ সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। এই স্বৈরাচারী সরকারের সময় ঘনিয়ে এসেছে। একটা মধ্যবর্তী নির্বাচন দেওয়ার মাধ্যমে নিজেদের পাপ মোচন করুন। জনগণের সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করুন।’