• আজ ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নদী রক্ষার বিষয়ে সকলকে সজাগ থাকতে হবে: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

◷ ১:১৭ অপরাহ্ন ৷ শুক্রবার, জানুয়ারী ১, ২০২১ ঢাকা
khaled

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, নদী রক্ষার ব্যানার ব্যবহার করে অবৈধ দখলদার ও স্বাধীনতা বিরোধীরা যাতে মাথাচাড়া দিতে না পারে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

‘স্বাধীনতা বিরোধীরা সংকুচিত ও দুর্বল হয়ে গেছে। তারপরেও তারা আবার ছোবল মারতে পারে। সামাজিক আন্দোলনের নামে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে পারে। স্বাধীনতা বিরোধীদের শুধু পরাজিত নয়, তাদেরকে নির্মূল করতে হবে।’

ঢাকায় বুড়িগঙ্গা নদীতে জাহাজে স্বাধীনতার ৫০ বছরে পদার্পণ উপলক্ষে ‘নদীও মুক্তিযোদ্ধা’ শীর্ষক ভাসমান সভায় প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। থ্রি অ্যাঙ্গেল ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড, নদী রক্ষা জোট এবং রিভার জাস্টিসের সহযোগিতায় নদী নিরাপত্তার সামাজিক সংগঠন ‘নোঙর’ ভাসমান সভার আয়োজন করে।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের অহংকার, গর্বের বিষয়। আমরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে পারিনি। আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক, এটাই মুক্তিযুদ্ধের অংশিদার। বঙ্গবন্ধু আমাদেরকে স্বাধীন দেশ, জাতীয় সংগীত ও পতাকা দিয়ে পরিচয় দিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধ কোনো ঠুনকো বিষয় নয়। কথায় কথায় মুক্তিযুদ্ধকে কোনো কিছুর সাথে তুলনা করা যায় না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করতে পারলে ভাল কাজ করতে পারব।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নদী আমাদের জীবনের একটি অংশ এবং অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি। আন্তর্জাতিক ব্যবসা-বাণিজ্যের গতি ধরে রাখে নদী। নদীকে প্রবাহমান ও নাব্য রাখতে পারলে আমাদের মুক্তি আসবেই। নদীগুলোকে সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মধ্যে এনে নাব্যতা ধরে রেখে উন্নয়নের সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজে লাগাতে হবে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু নৌপথ খননের লক্ষ্যে সাতটি ড্রেজার সংগ্রহ করেছিলেন। এর পরে ২০০৮ সাল পর্যন্ত কোনো সরকার ড্রেজার সংগ্রহ করেনি। গত ১০ বছরে ৩৪টি ড্রেজার সংগ্রহ করা হয়েছে, আরো ৩৫টি ড্রেজার সংগ্রহের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। সরকার ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথ খননের মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।

সংগঠনের সভাপতি সুমন শামসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও নদী বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও লেখক ইসহাক খান, বুড়িগঙ্গা বাঁচাও আন্দোলনের আহ্বায়ক মিহির বিশ্বাস এবং রিভারাইন পিপল’র মহাসচিব শেখ রোকন।