সিরাজগঞ্জে বিদ্যালয় কক্ষে অসামাজিক কর্মকান্ড: গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন

◷ ৩:১৫ অপরাহ্ন ৷ সোমবার, জানুয়ারী ৪, ২০২১ রাজশাহী
Sirajgonj news

সিরাজুল ইসলাম শিশির,সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: মহান বিজয় দিবসের রাতে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়নের চন্ডিদাসগাতী সৈয়দ আকবর আলী মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে এলাকার বখাটে কয়েকজন যুবক অসামাজিক কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকার প্রতিবাদে এবং দোষিদের দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকার সচেতন নাগরিকগণ।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও অত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাবেক ছাত্র ডা. এমদাদুল হকের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- প্রতিষ্ঠানের সাবেক ছাত্র রুহুল আমিন সজল, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য আতাব উদ্দিন, জেলা তথ্য প্রযুক্তি লীগের সহ-সভাপতি ফিরোজ তালুকদার প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, স্থানীয় বখাটে রনি, সিয়াম, রানা, মনোয়ার, মালেক, ইমরান ও নাজমুলসহ তাদের আরো কয়েকজন সহযোগী এলাকায় বিভিন্ন ধরণের অসামাজিক কাজসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত। এরা  ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসের রাতে একজন যুবতীকে নিয়ে নৈশপ্রহরী জাহিদুল ইসলামকে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিদ্যালয়ের গেটের চাবি নিয়ে অফিস কক্ষে প্রবেশ করে ওই যুবতীকে নিয়ে অসামাজিক কর্মকান্ড চালায়। এ ঘটনার পর বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার জন্য উঠে পড়ে লাগে। বিজয় দিবসের রাতে বিদ্যালয় কক্ষে এ অসামাজিক কর্মকান্ডকে মেনে নিতে পারছেনা এলাকাবাসী। সঠিক বিচার না পেয়ে গত ২৪ ডিসেম্বর এলাকার সচেতন নাগরিকদের পক্ষে ডা. এমদাদুল হক বাদি হয়ে সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। যে অভিযোগটি এখনো রেকর্ডভুক্ত করা হয়নি। এ সময় বক্তারা ঘটনার সাথে জড়িতের দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। অন্যথায় পরবর্তীতে বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে উল্লেখ করেন তারা।

এব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রহমতুল্লাহ বলেন, বিষয়টি অবগত হয়ে নৈশপ্রহরী জাহিদুল ইসলামকে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। নোটিশের জবাব পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।

ঘটনার সত্যতা শিকার করে নৈশপ্রহরী জাহিদুল ইসলাম বলেন, কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়েছি। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জবাব দেয়া হবে।

এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি বাহাউদ্দিন ফারুকী বলেন, তৃতীয় পক্ষের একটি অভিযোগ পেয়ে ঘটনার তদন্তে পুলিশ পাঠানো হয়েছিলো। তবে, বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এখানো কোন অভিযোগ করেনি।