• আজ ৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

অর্থ আত্মসাৎ: সাঈদীসহ ৬ জনের বিচার শুরু

◷ ৩:৫১ অপরাহ্ন ৷ সোমবার, জানুয়ারী ১১, ২০২১ জাতীয়
saidi

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড পাওয়া জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে জাকাতের অর্থ আত্মসাতের মামলায় অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। এর মধ্য দিয়েই আনুষ্ঠানিকভাবে বিচার শুরু হয়েছে।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) ঢাকার বিশেষ জজ আদালতের বিচারক সৈয়দা হোসনে আরার আদালত শুনানি শেষে এ আদেশ দেন।

পুরান ঢাকার বকশীবাজারস্থ আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী আদালতে এদিন এ মামলায় চার্জগঠনের শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। আসামি সাঈদীর পক্ষে আইনজীবীরা মামলায় তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করেন। পরে আদালত আবেদন নাকচ করে চার্জগঠনের আদেশ দেন।

একইসঙ্গে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা সাঈদীকে বিচারক অভিযোগ পাঠ করে দোষী না নির্দোষ জিজ্ঞাসা করলে সাঈদী নিজেকে নির্দোষ দাবি করলে আদালত ১৭ ফেব্রুয়ারি মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ঠিক করেন।

এদিন সকালে কারাগার থেকে সাঈদীকে আদালতে হাজির করা হয়। শুনানি শেষে আবার তাকে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

মামলায় দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীসহ মোট ছয়জন আসামি। অপর পাঁচ আসামি হলেন- ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সাবেক পরিচালক মোহাম্মদ লুৎফুল হক, মসজিদ কাউন্সিল ফর কমিউনিটি অ্যাডভান্সমেন্টের সাবেক চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, বন্ধুজন পরিষদের প্রধান সম্পাদক মিয়া মোহাম্মদ ইউনুস, ইসলামী সমাজ কল্যাণ কেন্দ্রের সাবেক সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মসজিদ কাউন্সিলের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল হক।

আসামিদের মধ্যে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী কারাগারে আছেন। আবুল কালাম আজাদ ও আব্দুল হক পলাতক রয়েছেন। অপর তিন আসামি জামিনে রয়েছেন। এ মামলায় সাতজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছিল। তবে সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মোশাররফ হোসেন শাহজাহান মারা যাওয়ায় তাকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের যাকাত তহবিলের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সংস্থাটির সাবেক পরিচালক (অর্থ ও হিসাব) আইয়ুব আলী চৌধুরী ২০১০ সালের ২৪ মে শেরে বাংলা নগর থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

মামলাটি তদন্ত করে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক ওয়াজেদ আলী গাজী ২০১২ সালের ৩০ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আমৃত্যু কারাদণ্ডের আদেশ নিয়ে বর্তমানে করাগারে রয়েছেন।