বাউফলে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে রোগী সেজে হাসপাতালে ভর্তি !


❏ সোমবার, জানুয়ারী ১১, ২০২১ দেশের খবর

কৃষ্ণ কর্মকার, বাউফল প্রতিনিধি: কাগজে কলমে তিনি অসুস্থ এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি। বাস্তবে তিনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থাকেন না, থাকেন বাহিরে। গত রোববার ও আজ সোমবার এই দুইদিনে ছয়বার সরেজমিনে ওই ব্যক্তিকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাওয়া যায়নি।

এমন ঘটনা পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। ওই ব্যক্তির নাম অসীম চন্দ্র শীল। তার বাড়ি দুমকি উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামে। তিনি বাউফল উপজেলার গ্রামীণ ব্যাংকের বগা শাখার মাঠ কর্মকর্তা।

অভিযোগ রয়েছে, অসীম চন্দ্র শীল প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে রোগী সেজে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গত বৃহস্পতিবার রাতে ভর্তি হয়েছেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে দুমকি উপজেলার শ্রীরামপুরের নিত্যানন্দ চন্দ্র শীলের সঙ্গে একই গ্রামের রামরঞ্জন শীলের জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল।

ওই বিরোধকে কেন্দ্র করে গত বৃহস্পতিবার নিত্যানন্দ চন্দ্র শীলের ছেলে মানবিন্দু চন্দ্র শীলের সঙ্গে রামরঞ্জন শীলের ছেলে অসীম চন্দ্র শীলের কথা-কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। ওই ঘটনায় পরের দিন শুক্রবার রামরঞ্জন শীল বাদী হয়ে অসীমচন্দ্র শীলকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি দেখিয়ে মানবিন্দু চন্দ্র শীল (২৮) এবং তার বাবা নিত্যানন্দ চন্দ্র শীল (৪৫) ও মা মালতী রানী শীলসহ (৪০) চারজনের নাম উল্লেখ করে দুমকি থানায় মামলা করেন। ওই দিনই পুলিশ মানবিন্দুকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়।

সরেজমিনে গত রোববার সকাল ১০ টা, দুপুর সাড়ে ১২ টা ও রাত আটটার দিকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অসীম চন্দ্র শীলকে পাওয়া যায়নি। পরের দিন গতকাল সোমবার তিন দফায় সকাল ১০ টা, দুপুর সাড়ে ১২ টা ও বিকেল সাড়ে তিনটায় সরেজমিনে গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

দায়িত্বে থাকা সেবিকা শারমিন বলেন, রোববার থেকে অসীম কুমারের খোঁজ নিতে গিয়ে পাওয়া যাচ্ছে না।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রশান্তকুমার সাহা বলেন,‘বিষয়টি নজরে আসার পর ওই ব্যক্তিকে অনুপস্থিত দেখানো হয়েছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এ বিষয়ে জানার জন্য আজ বিকেল সারে পাঁচটার দিকে অসীম চন্দ্র শীলকে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘আমি হাসপাতালে। এ প্রতিনিধি মুঠোফোনে তাকে বলেন, আমিওতো হাসপাতালে। তখন তিনি বলেন, আমি একটু বাহিরে আছি। একটু পরে ফোন করবো এই বলে ফোন কেটে দেন। এরপরে আর ফোন ধরেননি।

গ্রামীণ ব্যাংকের বগা শাখার সহকারী শাখা ব্যবস্থাপক মো. শাহিন বলেন, অসীম চন্দ্র শীল শুক্রবার সকালে মুঠোফোনে জানিয়েছেন তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ। তাই শনিবার থেকে তিন দিনের ছুটির প্রয়োজন। অসুস্থতার কারণ জানতে ও দেখতে যেতে চাইলে চাইলে তিনি (অসীম) বলেন, দেখতে আসা লাগবে না। প্রতিবেশী একজনের সঙ্গে কথা কাটা কাটি ও হাতাহাতি হয়েছে। তেমন অসুস্থ না।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন