মাগুরায় রাধা মোহন আশ্রমের গরু চুরি; অতপর জবাই করে মাংস লুট

cow

মতিন রহমান, মাগুরা প্রতিনিধি: মাগুরায় আশ্রম মন্দিরে থাকা পুরোহিতের একটি গর্ভবতী গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে। গত রোববার দিবাগত রাতে সদর উপজেলার বেরইল পলিতা ইউনিয়নের রামদেরগাতি রাধা মোহন আশ্রমে এই গরু চুরির ঘটনা ঘটে। উক্ত রাধা মোহন আশ্রমটি সদরের বেরইল পলিতা ইউনিয়নের রামদেরগাতি রাজাপুর-পুটিয়ার ব্রীজঘাট এলাকায় অবস্থিত।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী আশ্রমের পুরোহিত যুদৃষ্টি গোসাঁই ভারাক্রান্ত কন্ঠে জানায়, দু’বছর আগে জেলার খর্দ্দ কছুন্দি গ্রাম থেকে তিনি এই আশ্রমে আসেন। সঙ্গে ৩৫০০০ হাজার টাকা দিয়ে কেনা একটি গাভী গরু সঙ্গে নিয়ে আসেন। এরপর আশ্রম এলাকায় যেখানে তিনি থাকেন সেখানে গোয়ালঘরে গাভীটিকে পালন করতেন। প্রতিদিনের মত সন্ধ্যায় গাভীটি আশ্রমের পাশে গোয়াল ঘরে রেখেছিলেন। পরে সকালে উঠে গোয়ালঘরে আর গরুটি তিনি দেখতে পাননি। গাভীটি ৫ মাসের গর্ভবতী ছিলো এবং গাভীটির বর্তমান মূল্য ৭০-৭৫ হাজার টাকার মত হবে বলেও জানান আশ্রমের পুরোহিত।

বিষয়টি তখন আশ্রমের সভাপতি, সেক্রেটারীসহ এলাকাবাসীকে জানালে অনেক খোঁজাখুঁজির পরে আশ্রমের একটু দূরে নবগঙ্গা নদী পাড়ে খালঘাট নামক স্থানে সেই গরুর চামড়া গাছে ঝুলানো দেখতে পান স্থানীয়রা।

সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, গরুটিকে জবাই করে মাংশ, ভূড়িসহ অন্যান্য অংশ নিয়ে গেছে। শুধুমাত্র গাভীটির গর্ভে থাকা বাচ্চার রক্তমাখা মাংশপিন্ড এবং চামড়া গাছে ঝুলানো অবস্থায় দেখা গেছে।

এঘটনা জানাজানি হলে এলাকায় বেশ আলোচিত হয় এবং অনেকেই দেখতে আসেন। স্থানীয়রা জানায়, এরকম ঘটনা তাদের এলাকায় আগে কখনোই ঘটেনি। যারা আশ্রমের গরু চুরি করেছে এবং গরু কেটে মাংশ নিয়ে গেছে তাদের আইনের আওতায় আনার জোর দাবী জানান তারা।

তবে কে বা কারা? এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত সে বিষয়ে এখনো কিছুই জানা যায়নি। এ ঘটনার ব্যাপারে আশ্রমের সভাপতি পরিমল সরকার জানান, আশ্রমের গরু চুরির ঘটনাটি অত্যন্ত জঘন্যতম ঘটনা। তিনি সুস্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার কথা জানিয়েছেন সেইসঙ্গে আজ মাগুরা সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেছেন বলেও জানান তিনি।

এদিকে এই এঘটনা বিষয়ে জানতে পেরে স্থানীয় শত্রুজিৎপুর ক্যাম্পের পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

◷ ৬:০০ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, জানুয়ারী ১৯, ২০২১ খুলনা