🕓 সংবাদ শিরোনাম

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে সংক্রমণ ৫ শতাংশের নিচে নামলেদিন কাটে ভাঙা ঘরে, পঙ্গু মেয়ের জন্য একটি হুইল চেয়ারের আকুতি অসহায় মায়েরবিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ৫০০ মুসলিমের তালিকা প্রকাশ, শীর্ষে এরদোগানকরোনার টিকা ছাড়াই সুঁই পুশ করা সেই স্বাস্থ্যকর্মীকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতিবিয়ের শুরু থেকেই স্বামী হানি সিং এর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ স্ত্রীর!তাহাজ্জুদ নামাজের অজু করতে গিয়ে পুকুরে ডুবে বৃদ্ধার মৃত্যুভুঁইফোড় কমিটিঃ সেই দর্জি মনিরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাশুধু তুরস্ক নয়, গ্রিসেও ভয়াবহ দাবানল শুরু‘টিকা ছাড়া চলাফেরায় শাস্তি’র খবর সঠিক নয় : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়শুরু হচ্ছে ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ প্রক্রিয়া, এবারে থাকছে যেসব পরিবর্তন

  • আজ বুধবার, ২০ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৪ আগস্ট, ২০২১ ৷

চাঁদপুরে ভাঙা ঘরে ৭ সদস্যের সংসার: মাথা গোঁজার ঠাঁই চান অসহায় জাফর

house
❏ রবিবার, জানুয়ারী ২৪, ২০২১ চট্টগ্রাম

মাহফুজুর রহমান, চাঁদপুর প্রতিনিধি: ‘আমার ভাঙ্গা ঘরে, ভাঙ্গা চালা, ভাঙ্গা বেড়ার ফাঁকে, অবাক জোছনা ঢুইকা পরে হাত বাড়াইয়া ডাকে’ সাবিনা ইয়াসমিনের জনপ্রিয় গানের এ কথাগুলো গানেই শোভা পায়, কিন্তু জীবন মঞ্চে একদমই নয়।

“ভালা একটা ঘর নাই। আংগো ছাপরা একটা ভাঙ্গা টিনের চালা। ওই চালার নিচে তিনকোনা ৫ পোলা-মাইয়া, বউ-বেডি লইয়া থাহি। রাইতে ঘুমাইতে পারি না, বৃষ্টির দিনে চালা দিয়ে পানি পড়ে। ঘরের কাঁথা-বালিশ সবগুন (সব) ভিজ্জা যায়। শীতের দিনো ঘরের ভিত্রে বাতাস ডুহে। এতো মাইনষ্যেরে শেখের বেটি হাসিনা ঘর বানাইয়া দিলো, আমার লইগ্গা কি কোন ঘর-দুয়ার নাই। আমনেরাও তো লেইখখা নিয়া গেলেন? কিছুই ত হইলোনা, আংগো জীবন কি এমনই কাটবো?”

ঠিক এভাবেই নিজের কষ্টের কথাগুলো বলছিলেন চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার জহিরাবাদ ইউনিয়নের গৃহহীন অসহায় জাফর।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভাঙ্গা চালা, ভাঙ্গা বেড়াবিহীন ঘরে ৭ সদস্যের সংসার, চরউমেদ গ্রামের মৃত আমির আলী প্রধানের বড় ছেলে জাফর প্রধানের। শীত কিংবা গ্রীষ্ম, বৃষ্টি হলে বৃষ্টির পানি, শীতে কুয়াশার চাদরে জাফরের বেঁচে থাকা যুদ্ধের মতোই। বছরের পর বছর দারিদ্র্যের কষাঘাতে দুর্বিষহ জীবনযাপন করছেন তিনি। এমন একটি জরাজীর্ণ টিনের চালায় বাস করেন অথচ সরকারি একটি ঘরের সহায়তায় এগিয়ে আসেনি কেউ। বেঁচে থাকার তাগিদে জরাজীর্ণ ভাঙ্গা টিনের চালায় রাতভর ছটফট করে ৫ সন্তানকে নিয়ে থাকতে হয় জাফরকে। মুজিব বর্ষে সরকারি একটি ঘর পাওয়ার আকুতি দিনমজুর জাফর প্রধানের।

স্থানীয়রা জানায়, জাফরের টিনের চালাটি ঝড়-বৃষ্টির দিনে যে কোন সময় ভেঙে পড়বে। আশ্রয়স্থল যদি ঠিক না থাকে তাহলে দিনরাত পার করা খুব মুশকিল। জীবন-যাপন করার জন্য মোটামুটি ভালো আশ্রয়স্থলের একটি ঘর তার খুব প্রয়োজন। এতো মানুষ ঘর, টিন পায় চরের মানুষ কি মানুষ না?

ওই জাফরকে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের একটি গৃহ নির্মাণের ব্যবস্থা করে দিতে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী, জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়ের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন স্থানীয়রা।

উল্লেখ্য, মুজিববর্ষে ‘বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’- প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণা বাস্তবায়নে চাঁদপুর জেলায় ১১৫টি ঘরের মাঝে শনিবার (২৩ জানুয়ারি) মতলব (উত্তর) উপজেলায় ৫টি ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন