• আজ শুক্রবার, ১৫ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৩০ জুলাই, ২০২১ ৷

কক্সবাজারে ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে অপপ্রচার, চলছে ভয়ংকর ব্ল্যাকমেইলও

facebook
❏ সোমবার, জানুয়ারী ২৫, ২০২১ চট্টগ্রাম

শাহীন রাসেল, কক্সবাজার থেকে: কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের খরুলিয়ায় ইন্টারনেটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে (ফেইক) ভুঁয়া আইডি খুলে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে অপপ্রচার ও ব্ল্যাকমেইলিং চলছে। শুধু তাই নয়, প্রতারনা ও অপপ্রচারের শিকার হচ্ছেন সমাজের সকল স্তরের লোকজন। আইটি বিভাগের দূর্বলতার অযুহাতে আইনি সহায়তা চেয়েও প্রতিকার পাচ্ছেন না বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ।

একাধিক সূত্র জানায়, জামায়াত অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে পরিচিত খরুলিয়ায় স্থানীয় বিএনপি, আওয়ামীলীগ ও জামায়াতের শক্ত অবস্থান রয়েছে। রয়েছে ধর্মীয় পীরের ভক্তদের আলাদা মতামত ও অনুসারী, সনাতনীদের অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্বের কথাও শুনা যায়।

এখানে ঝিলংজার দুই ওয়ার্ডে বিভিন্ন সমাজিক সংগঠনও রয়েছে। অপরদিকে সংগঠনের অভ্যন্তরিন বিরোধের জের ধরে রয়েছে এক চাপা উত্তেজনা। এসব নিয়ন্ত্রনে কাজ করছে স্থানীয় একাধিক শক্তিশালী ও প্রভাবশালী চক্র। শুধু তাই নয়, তাদের ভারাটিয়া সন্ত্রাসী ও মাদকের সয়লাবে স্থানীয়রা অতিষ্ঠ। তাই রাজনৈতিক, ব্যবসায়ীক, সামাজিক প্রতিপক্ষ সৃষ্টি হয়েছে বহুদিন যাবৎ।

এছাড়াও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, জামায়াত ও বিএনপির অভ্যন্তরীন কোন্দল আসন্ন ইউপি নির্বাচন ঘিরে বেড়ে গেছে। তারা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভুয়া আইডির আশ্রয় নিয়েছেন বলে অনেকে অভিযোগ করেছে।

সূত্র আরোও জানায়, বৃহত্তর খরুলিয়ার ১৫ হাজারের অধিক জনসংখ্যার মাঝে প্রায় ১০ হাজার মোবাইল ব্যবহারকারী আছে। তাদের মাঝে বয়সে তরুণ প্রায় ৪ হাজার গ্রাহকের স্মার্ট ফোনের ব্যবহার রয়েছে। তাদের প্রত্যেকের একেকটি বৈধ আইডি রয়েছে। পাশাপাশি রয়েছে ভুঁয়া আইডিও। অভিভাবকের হাতে ধরা খাওয়ার ভয়ে কেউ কেউ ভুয়া আইডি খুলে ফেসবুকে অবাধ বিচরন করছে। তবে বেশিরভাগ প্রতারনা ও অপপ্রচারের উদ্দেশ্যেই ব্যবহার হচ্ছে বলে দাবী সচেতন মহলের।

তাই আশংকা জনকহারে বিভিন্ন কারনে এসব আইডির পাশাপাশি খুলেছে ভুয়া আইডি। বিভিন্নজনের বিভিন্ন উদ্দেশ্য থাকে। বেশির ভাগের উদ্দেশ্যই থাকে ভুয়া আইডির মাধ্যমে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা। বাদ যায়নি সন্ত্রাসীদের এ অপপ্রচারে অংশগ্রহণ। তাদের টার্গেট এখন এলাকার ধনী শ্রেণি, সুনামধন্য সমাজপতিরা।

সম্প্রতি “মুনিরা কাজলী” বীর সৈনিক, চেতনা একাত্তর, এন্টি ভাইরাস, আরিফুল ইসলাম মিয়া, জুয়েল জুয়েল, আরিফ আরিফ, সুমাইয়া আক্তার সুমি, আমি তোমাদের লোক, বীর সেনা, খরুলিয়া ২৪, আমাদের খরুলিয়া ইত্যাদি নাম ভাঙ্গিয়ে খরুলিয়ার জনসাধারনের মানহানীসহ নানা হয়রানীর অভিযোগ করেছেন। এসব ঘটনায় ভুক্তভোগীরা থানায় সাধারন ডায়েরী করেও কোন প্রতিকার পাননি বলে অভিযোগ রয়েছে। প্রশাসন এসব ভুয়া ফেইসবুক আইডির বিরুদ্ধে তৎপর না হলে এবং ব্যবস্থা না নিলে সমাজে অপরাধ প্রবণতা বেড়ে যাবে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিমত।

জানা গেছে, ফেসবুকে ভুঁয়া আইডি রীতিমতো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক এখন ভয়ঙ্কর ফাঁদের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করছে অপরাধীরা। ফেসবুকে ভুয়া তথ্য দিয়ে অনেকে মজা পেলেও প্রতারণার শিকার কেউ কেউ মানসিক রোগে আক্রান্ত পর্যন্ত হচ্ছেন। অপরাধ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ ফেসবুকই একদিকে যেমন বন্ধুত্বের বন্ধন অটুট করছে, তেমন একে ব্যবহার করে কেউ কেউ স্বার্থ হাসিল করছে। প্রতারণার মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করছে ফেসবুককে।

প্রায়ই শোনা যায়, ফেসবুকে পরিচয় থেকে প্রেম। একসময় বন্ধুরূপী প্রতারকের খপ্পরে পড়ে অনেককে হারাতে হয়েছে ইজ্জত। শুধু তাই নয়, ইজ্জত খুইয়েই শেষ হয়নি, প্রাণ পর্যন্ত দিতে হয়েছে অনেককে। আবার ফেসবুককে ব্যবহার করে বহু পরিবারকে করা হয়েছে ছন্নছাড়া। বিজ্ঞানের আবিষ্কারকে ব্যবহার করে প্রেমিকার সঙ্গে অন্তরঙ্গ ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকির কথা শোনা যায় হামেশা। আবার ফেইক আইডি খুলে সম্মানি লোকের সম্মানহানি করা হচ্ছে অবলীলায়।

পূলিশ ও আইটি বিশেষজ্ঞরা বলেন, একটি প্রভাবশালী মহল ফেসবুকে ভুঁয়া আইডি ব্যবহার করে সরকারবিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত আছে। পাশাপাশি ধর্মীয় উস্কানী প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে, নাশকতামূলক নানা কাজে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাইভার অপরাধ বেড়েই চলছে।

স্থানীয়রা বলেন, ফেক আইডিগুলোর অধিকাংশে প্রোফাইলের ছবিতেই সুন্দরী নারী অথবা হ্যান্ডসাম পুরুষের ছবি দেয়া থাকে আবার থাকে ও না। এক্ষেত্রে ছবিটি গুগল ইমেজে সার্চ দিলে একাধিক ব্যবহারের প্রমাণ মিলে। তাছাড়া ভুয়া পরিচয়ে ও ছবি দিয়ে মোবাইল সিম বিক্রি হওয়াতে এ ফেক আইডির সংখ্যা বাড়ছে। এ ফেক আইডি ব্যবহার করে সামাজিক জীবনে দূর্বিসহ ও শঙ্কিত পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে বলে স্থানীয়দের দাবী।

ঝিলংজা ইউনিয়নের এক জনপ্রতিনিধি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, একটি চক্র নামিদামি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে ফেসবুকের ভুয়া আইডি ব্যবহার করে নানা রকম অপরাধমূলক কর্মকান্ড চালিয়ে হয়রানী করছে। অবিলম্বে দেশের বিটিআরসি কর্তৃপক্ষকে তাদের চিহ্নিত করে আইনি ব্যবস্থা নিতে পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানাচ্ছি।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, আইসিটি বিভাগ তৎপর রয়েছে। পুলিশ ইতিমধ্যে শতাধিক ভুয়া ফেসবুক পেজ ও আইডি শনাক্ত করেছে। তবে কক্সবাজারে এ অবস্থা ভয়াবহ রুপ নিয়েছে। আমরা এ ভুয়া আইডি সনাক্ত করে এসব আইডি বন্ধ এবং জড়িতদের ধরে দ্রুত আইনের আওতায় আনতে পুলিশের আইসিটি শাখাকে জানিয়ে ব্যবস্থা নেব। এছাড়াও টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক কমিশনও (বিটিআরসি) পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছেন। আশাকরি কেউ আর প্রতারিত হবেন না।

আরও পড়ুন :

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন