🕓 সংবাদ শিরোনাম

কুরবানীর মাংস রান্না করার সময় ভেসে উঠলো আল্লাহর নাম!ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়ছে ইলিশ, হাঁকডাকে সরগরম মৎস্যঘাটকেউ খোঁজ রাখেনি, পল্লী বিদ্যুতের তারে বিদ্যুতায়িত পাপেলের ভরসা এখন হুইল চেয়ারবগুড়ার শেরপুরে সাংবাদিকের বাড়ি দখলের চেষ্টা, থানায় অভিযোগজরুরি অবস্থা জারি করতে রাষ্ট্রপতির কাছে আইনজীবীর আবেদননোয়াখালথতে ঘরে আগুন দিয়ে নারীসহ ৩ জনকে পিটিয়ে আহত করেছে কিশোর গ্যাংওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করলেন কাদের মির্জাবগুড়ায় আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যাকক্সবাজারে ফের পাহাড় ধস, ঘুমন্ত অবস্থায় একই পরিবারের ৫ জনের মৃত্যুশিশু শিক্ষার্থীরা যখন ক্রেতা-বিক্রেতা!

  • আজ বুধবার, ১৩ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৮ জুলাই, ২০২১ ৷

ইউপি সদস্যের নামে কুরিয়ারে ‘চাইনিজ কুড়াল’ পাঠাল কে?

news
❏ বুধবার, জানুয়ারী ২৭, ২০২১ রাজশাহী

সাখাওয়াত হোসেন জুম্মা, বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুরে শাহ-বন্দেগী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যের নামে পাঠানো কুরিয়ার সার্ভিসের পার্সেল খুলেই মিলল চাইনিজ কুড়াল। ঘটনাটি নিয়ে উপজেলা এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

২৬ জানুয়ারি মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ‘রিডেক্স হোম ডেলিভারি সার্ভিস’ কুরিয়ারে পার্সেলটি উপজেলার সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) ছাইদার রহমান সাকিবের নামে এটি পাঠানো হয়। এদিকে মঙ্গলবার রাতে কুরিয়ারে পাঠানো ধারালো অস্ত্রটি (চাইনিজ কুড়াল) থানায় জমা দিয়ে একটি সাধারণ ডায়েরী (জিডি) করেন ওই ইউপি সদস্য।

থানার ওই জিডি থেকে জানা যায়, ঢাকার গাজীপুর জেলার চল্লিশ নম্বর ওয়ার্ডের বড় বাজার (চামুদ্দা বাজার) থেকে ‘রিডেক্স হোম ডেলিভারি সার্ভিস’ কুরিয়ারে ওই পার্সেলটি ইউপি সদস্য ছাইদার রহমান সাকিবের ঠিকানায় বুকিং দেয়া হয়। ঠিকানায় ওই ইউপি সদস্যের মোবাইল নম্বরও দেয়া হয়।

সে অনুযায়ী আল আমিন নামের এক ব্যক্তি নিজেকে ওই কুরিয়ারের ডেলিভারিম্যান পরিচয় দিয়ে তার মোবাইল থেকে ইউপি সদস্যের মোবাইলে ফোন দিয়ে শেরপুর বাসস্ট্যান্ডে আসতে বলেন পার্সেলটি নেয়ার জন্য।

এ সময় ইউপি সদস্য ছাইদার রহমান কোনো পণ্যের অর্ডার করেননি বলে জানিয়ে দেন। এরপরও ওই ব্যক্তির একাধিকবার ফোন পেয়ে শহরের সাউদিয়া হোটেলের সামনে যান ছাইদার রহমান সাকিব। সেইসঙ্গে পার্সেলটি গ্রহণ করেন। কিন্তু পার্সেলের প্যাকেট খুলেই একটি চাইনিজ কুড়াল দেখে হতবিহ্বল হয়ে পড়েন।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য ছাইদার রহমান সাকিব বলেন, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি একজন প্রার্থী । তাই নির্বাচন থেকে সরিয়ে দেয়ার জন্য ভয়ভীতি দেখাতেই হয়ত এটি করা হয়ে থাকতে পারে। এছাড়া ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাকে ফাঁসানোর টার্গেটও থাকতে পারে। যাতে করে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করা সম্ভব হয়। আর এই কারণেই তার পুরো নাম ঠিকানা ও ব্যক্তিগত ফোন নম্বর সঠিকভাবেই পার্সেলের গায়ে লেখা রয়েছে। তবে যারাই এহেন কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িত থাক না কেন খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনার জন্য পুলিশ প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান তিনি।

এ বিষয়ে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) শহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ঘটনাটির রহস্য উদঘাটনে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। অচিরেই এই ঘটনার রহস্য উন্মোচিত হবে। পাশাপাশি জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন