🕓 সংবাদ শিরোনাম

কেউ খোঁজ রাখেনি, পল্লী বিদ্যুতের তারে বিদ্যুতায়িত পাপেলের ভরসা এখন হুইল চেয়ারবগুড়ার শেরপুরে সাংবাদিকের বাড়ি দখলের চেষ্টা, থানায় অভিযোগজরুরি অবস্থা জারি করতে রাষ্ট্রপতির কাছে আইনজীবীর আবেদননোয়াখালথতে ঘরে আগুন দিয়ে নারীসহ ৩ জনকে পিটিয়ে আহত করেছে কিশোর গ্যাংওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করলেন কাদের মির্জাবগুড়ায় আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যাকক্সবাজারে ফের পাহাড় ধস, ঘুমন্ত অবস্থায় একই পরিবারের ৫ জনের মৃত্যুশিশু শিক্ষার্থীরা যখন ক্রেতা-বিক্রেতা!কেরানীগঞ্জ স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিতসিলেটে রাতের আধারে রাস্তা মেরামতে নারী উদ্যোক্তা ফারমিস

  • আজ বুধবার, ১৩ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৮ জুলাই, ২০২১ ৷

সেই ছাত্রীর সঙ্গে জোর করে যৌন সম্পর্কের আলামত মেলেনি


❏ সোমবার, ফেব্রুয়ারী ১, ২০২১ আলোচিত

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক: ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী মারা যাওয়ার এক দিন পর চিকিৎসকেরা বলেছেন, ময়নাতদন্তে জোর করে যৌন সম্পর্কের কোনো আলামত তারা পাননি।

আজ সোমবার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে ওই ছাত্রীর ময়নাতদন্ত করে এ মন্তব্য করেন চিকিৎসকরা।

পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেছেন, এ ঘটনায় গ্রেপ্তার আসামিরা পাঁচ দিনের রিমান্ডে আছেন। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ঠিক কী কারণে ওই ছাত্রী মারা গেছেন, খোঁজ নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

এদিকে ছাত্রীর বাবা অভিযোগ করেছেন, তার মেয়েকে মদ খাইয়ে ধর্ষণ করা হয়েছিল। পুলিশ মদের উৎস খোঁজার চেষ্টা করছে। তবে গত বৃহস্পতিবার রাতে উত্তরার রেস্তোরাঁয় তাদের যে বন্ধু মদ নিয়ে গিয়েছিলেন, তিনি নিজেও মারা গেছেন। ফলে এখনই জানা যাচ্ছে না, ওই মদ তারা কোথা থেকে কিনেছিলেন।

উল্লেখ্য, বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার বাবা মোহাম্মদপুর থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় তিনি আসামি করেন মর্তুজা রায়হান চৌধুরী, নুহাত আলম তাফসীর, আরাফাত ও নেহাকে। পুলিশ আরাফাতকে গ্রেপ্তার করতে গিয়ে শোনেন, তিনিও ধানমন্ডির একটি হাসপাতালে মারা গেছেন।

পুলিশ জানায়, গত ২৮ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রী তার বন্ধু মর্তুজা রায়হান চৌধুরীর সঙ্গে বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে তারা পরে উত্তরায় তাদের আরও তিন বন্ধুর সঙ্গে একটি রেস্তোরাঁয় দেখা করেন। অসুস্থ বোধ করায় দুজন আগেই বাসায় চলে যান।

ছাত্রী ও তার বন্ধু সেই রাতে তাদের আরেক বন্ধুর বাসায় থেকে যান। ওই বাসায় গিয়ে তিনি অসুস্থ বোধ করেন। গত শুক্রবার বিকেল থেকে ওই ছাত্রীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। প্রথমে বন্ধুবান্ধবেরা তাকে ইবনে সিনায় নিয়ে যান। সেখানে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র ফাঁকা না থাকায় মেয়েটিকে পরে আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে নেওয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত শনিবার দুপুরে মারা যান তিনি।

সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রধান সেলিম রেজা বলেন,আপাতদৃষ্টে জোর করে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের কোনো আলামত তারা পাননি। সুরতহালে বিষাক্ত মদের উপস্থিতির কথা বলা হয়েছিল। সে কারণে পরীক্ষার জন্য রক্তও নেওয়া হয়েছে। ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে কি না, নিশ্চিত হতে কিছু আলামত সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন