🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ সোমবার, ১৮ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২ আগস্ট, ২০২১ ৷

কক্সবাজারে মাদক সেবনে বাঁধা দেওয়ায় যুবককে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

rubel
❏ বুধবার, ফেব্রুয়ারী ৩, ২০২১ চট্টগ্রাম

কক্সবাজার সংবাদদাতা: কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা ইউনিয়নের দরগাহপাড়ায় মাদক সেবনে বাঁধা দেওয়ায় রুহুল আমিন রুবেল (২৫) নামে এক যুবকের ওপর মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারি বখাটেরা কুপিয়ে হত্যার চেষ্টায় মারাত্মক জখম করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (২ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে দরগাহপাড়া ষ্টেশনে নিজ দোকানের সামনে এ হামলার শিকার হয় রুবেল। তিনি পূর্ব মুক্তারকুল এলাকার হাজী আবদুস শুক্কুরের ছেলে।

ঘটনার পর আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তার অবস্থা এখনো শঙ্কামুক্ত নন বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

আহত যুবকের বাবা আবদুস শুক্কুর জানান, বাঁকখালী নদীর পাড়ে একই এলাকার ডাকাত কানা বাবুলের ছেলে মামুন পলিথিন দিয়ে একটি ঝুপড়ি ঘর তৈরী করে। যেখানে মামুন ও তার মাদকসেবী বন্ধুরা নিয়মিত গিয়ে ইয়াবা সেবন করে। প্রতিদিন মাদক সেবনের পর তারা ওই এলাকার নারীদের উত্যক্ত করে।

আহত রুবেল কয়েক দিন ধরে মাদকসেবীদের মাদক সেবনে বাঁধা দিয়ে প্রতিবাদ করে মঙ্গলবার (০২ ফেব্রুয়ারি) সকালে পলিথিনের ঝুপড়ি ঘরটি পুড়িয়ে দেয়। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।

ওইদিন বিকেলে মামুন সাত থেকে আটজন সহযোগীকে নিয়ে আবারও ইয়াবার আসর বসায়। ইয়াবা সেবনের পর মামুনের নেতৃত্বে তার সহযোগীরা ধারালো অস্ত্র, হকস্টিক ও লোহার রড় নিয়ে দরগাহ ষ্টশনে এসে রুবেলের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ও এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে চট্রগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের পাশে মৃত ভেবে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মামুন দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদক ব্যবসা করে আসছে। এলাকার উঠতি বয়সের ছেলেদের নিয়ে একটি কিশোর গ্যাং তৈরী করে ওই এলাকায় মাদক সেবন ও বিক্রি করে আসছে। এছাড়াও সে এলাকার মাদকসেবীদের নিয়ে এলাকায় একটি সিন্ডিকেট তৈরি করে প্রভাব বিস্তার করে আসছে। তার ভয়ে কেউই এসবের প্রতিবাদ করার সাহস করে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, মামুনের পুরো পরিবার ডাকাত ও মাদকসেবী। দীর্ঘদিন ধরে তারা এই এলাকায় স্থানীয় মাদকসেবী যুবকদের নিয়ে একটি সিন্ডিকেট করে মাদক ব্যবসা করে আসছে। তাদের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুললে এভাবে হামলার শিকার হতে হয়।

তবে এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে অভিযুক্ত মামুনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্ঠা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ঘটনায় সদর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলা হলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান ওসি।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন