🕓 সংবাদ শিরোনাম

দিন কাটে ভাঙা ঘরে, পঙ্গু মেয়ের জন্য একটি হুইল চেয়ারের আকুতি অসহায় মায়েরবিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ৫০০ মুসলিমের তালিকা প্রকাশ, শীর্ষে এরদোগানকরোনার টিকা ছাড়াই সুঁই পুশ করা সেই স্বাস্থ্যকর্মীকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতিবিয়ের শুরু থেকেই স্বামী হানি সিং এর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ স্ত্রীর!তাহাজ্জুদ নামাজের অজু করতে গিয়ে পুকুরে ডুবে বৃদ্ধার মৃত্যুভুঁইফোড় কমিটিঃ সেই দর্জি মনিরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাশুধু তুরস্ক নয়, গ্রিসেও ভয়াবহ দাবানল শুরু‘টিকা ছাড়া চলাফেরায় শাস্তি’র খবর সঠিক নয় : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়শুরু হচ্ছে ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ প্রক্রিয়া, এবারে থাকছে যেসব পরিবর্তনগত ২৪ ঘন্টায় করোনায় ময়মনসিংহে ২২ জন রাজশাহীতে ১৪ জনের মৃত্যু

  • আজ বুধবার, ২০ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৪ আগস্ট, ২০২১ ৷

সারাদিনে মিলছে না ২০ মিনিট বিদ্যুৎ, বোরো চাষীরা চরম ক্ষতির মুখে!


❏ শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ৫, ২০২১ স্পট লাইট

ফয়সাল শামীম, স্টাফ রিপোর্টার: কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির আওতায় থাকা গ্রাহকরা সারাদিনে ২০ মিনিট বিদ্যুৎ পাচ্ছে না। আবার যে ২০ মিনিট বিদ্যুৎ পাচ্ছে তাও আবার লো-ভোল্টেজ। সেই ভোল্টে সেচের পাম্প ষ্টাট হওয়া তো দুরের কথা সাধারণ বাল্পই জ্বলতে চায় না।

এ ঘটনা টানা ২ মাস ধরে চলছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

এ অবস্থায় চরম বিপাকে পড়েছে বোরোচাষী ও সাধারণ ব্যবসায়ীরা। বোরো চাষের বীজ রোপনের সময় পাড় হয়ে গেলেও বিদ্যুতের এত বড় বিপর্যরে কারণে মুশড়ে পড়েছে সাধারণ কৃষকগণ।

অনেকে বাধ্য হয়ে স্যালোচালিত মেশিন দিয়ে আবাদ শুরু করলেও তা অনেক ব্যায় বহুল হওয়ায় বেশিরভাগ কৃষক তা শুরু করতে পারেনি।

এ অবস্থা পুরো উত্তর ধরলা থেকে শুরু করে ভুরুঙ্গামারী পযন্ত।

তবে সবচেয়ে বেশি বৈষম্য করা হচ্ছে নাগেশ্বরী পল্লী বিদ্যুতের আওতায় থাকা ভিতরবন্দ লাইনে।

বিদ্যুতের এই করুন পরিণতিতে বেড়ে গেছে চুরিও। গত কয়েকদিনে বেশ কয়েকটি দোকান চুরি গেছে।

ভিতরবন্দ ইনিয়নের কৃষক আব্দুল জলিল বলেন, এক এক করে ৬ দিন রাত জেগে ৩ বিঘা জমি ভেজানোর চেষ্টা করেছি কিন্তু কোনভাবেই না পেয়ে স্যালোতে আলাদা ভাড়া দিয়ে তেল কিনে তারপর পনি নিয়ে জমিতে চারা রোপন করেছি। তিনি আরও বলেন এত ব্যয় হলে চাষাবাদ করা সম্ভব নয়।

ভিতরবন্দ লাইনের ভিতরবন্দ বাজারের ব্যাবসায়ী আলম মিয়া বেশ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সারাদিন তো বিদ্যুৎ থাকেই না । রাতে একটু আসলেও কিছুক্ষন থেকেই চলে যায়। আমরা কিভাবে ব্যাবসা করবো।

একই লাইনের ডাঃ রিপন জানান, বিদ্যুৎ পাওয়ার ১৯ বছরে এরকম অবস্থা কোনদিন দেখি নাই।বিদ্যুতের এ অবস্থা দেখে মনে হয় আমাদের এখানে মনে হয় এখনও বিদ্যুতই আসেনি। কুমরপুর বাজারের ব্যাবসায়ী তপন বলেন, সকালে দোকান খুলি রাত ১০ টায় বন্ধ করি গত ৪/৫ দিন থেকে সকাল থেকে রাত একসময়ও বিদ্যুৎ পাইনা।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নাগেশ্বরী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম আতিকুর রহমান বলেন, পাটেশ্বরী লাইনের আওতায় থাকা কুমরপুর সাব ষ্টেশনের মেশিন নষ্ট হওয়ায় এ সমস্যা হচ্ছে। তার কাছে প্রশ্ন ছিল একটা মেশিন ঠিক করতে কি ২ মাসের বেশি সময় লাগে? প্রশ্নের উত্তরে তিনি ক্ষেপে গিয়ে বলেন, আরও সময় লাগবে অপেক্ষা করতে হবে।

এ ব্যাপারে কথা হলে কুড়িগ্রাম লালমনির হাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) স্বদেশ কুমার ঘোষ বলেন, কুমরপুর সাব ষ্টেশনের নষ্ট মেশিনটির ব্যাপারে দ্রুত সমাধান হবে। তবে সারাদিনে বিভিন্ন লাইনে ২০ মিনিটও কেনো বিদ্যুৎ দেয়া হচ্ছেনা সেটা খতিয়ে দেখা হবে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন