🕓 সংবাদ শিরোনাম

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে সংক্রমণ ৫ শতাংশের নিচে নামলেদিন কাটে ভাঙা ঘরে, পঙ্গু মেয়ের জন্য একটি হুইল চেয়ারের আকুতি অসহায় মায়েরবিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ৫০০ মুসলিমের তালিকা প্রকাশ, শীর্ষে এরদোগানকরোনার টিকা ছাড়াই সুঁই পুশ করা সেই স্বাস্থ্যকর্মীকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতিবিয়ের শুরু থেকেই স্বামী হানি সিং এর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ স্ত্রীর!তাহাজ্জুদ নামাজের অজু করতে গিয়ে পুকুরে ডুবে বৃদ্ধার মৃত্যুভুঁইফোড় কমিটিঃ সেই দর্জি মনিরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাশুধু তুরস্ক নয়, গ্রিসেও ভয়াবহ দাবানল শুরু‘টিকা ছাড়া চলাফেরায় শাস্তি’র খবর সঠিক নয় : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়শুরু হচ্ছে ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ প্রক্রিয়া, এবারে থাকছে যেসব পরিবর্তন

  • আজ বুধবার, ২০ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ৪ আগস্ট, ২০২১ ৷

মেয়র প্রার্থীকে গাড়িতে তুলে সেতুমন্ত্রীর কাছে নিয়ে গেলেন এসপি


❏ রবিবার, ফেব্রুয়ারী ৭, ২০২১ দেশের খবর

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক:মাদারীপুরের কালকিনি পৌরসভার স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মশিউর রহমান সবুজ বাড়ি ফিরেছেন। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে তিনি কালকিনির নিজ বাড়িতে ফিরেন বলে জানিয়েছেন তার স্বজন ও সমর্থকরা। ‘নিখোঁজের’ ১৩ ঘণ্টা পর তিনি বাড়ি ফেরেন।

বাড়ি ফেরার পর আজ রোববার গণমাধ্যমের কাছে তিনি দাবি করেন, তাকে ঢাকায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।

গণমাধ্যমে মশিউর বলেন, ‘মাদারীপুরে নির্বাচনী মাঠ থেকে পুলিশের গাড়িতে তুলে আমাকে ঢাকায় ওবায়দুল কাদেরের সাথে দেখা করতে নিয়ে যাওয়া হয়।’

সকালে কালকিনির দক্ষিণ কৃষ্ণনগরে নিজ বাড়িত সাংবাদিকদের তিনি আরও বলেন, ‘কালকিনি থানার ওসির গাড়িতে করে মাদারীপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে যাই। সেখান থেকে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান তার গাড়িতে করে ঢাকায় নিয়ে যান। সেখান থেকে ওবায়দুল কাদেরর সাথে দেখা করতে হয়েছে।’

মশিউর দাবি করেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তাকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে বলেছেন। কিন্তু জনগণের ইচ্ছায় তিনি নির্বাচনি মাঠে থাকবেন বলে জানান।

বিষয়টি নিয়ে মাদারিপুর থানার ওসি’র কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ মাহবুব হাসান গণমাধ্যমে জানান, মশিউর নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কাজে তার অফিসে এসেছিলেন। পরে তিনি ঢাকায় গেছেন তার ব্যক্তিগত কাজে। তাকে যাওয়ার সময় শুধু সহযোগিতা করা হয়েছিল। তিনি সবুজ নিখোঁজ এ ধারণা থেকে তার সমর্থকরা থানার সামনে বিক্ষোভ করে। যখন তার পরিবার সঠিক ব্যাপারটা জানতে পারে তখন তারা থানা থেকে চলে যান।

পুলিশ সুপার বলেন, ‘সবুজের পরিবার সন্ধ্যার পরে থানা থেকে সরে গেলে সেখানে অবস্থান নেয় বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী সোহেল রানা মিঠুর সমর্থকরা। তারাই মূলত নৌকার সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায়। তবে পুলিশ তৎপর থাকায় হামলাকারীরা বেশি কিছু করতে পারেনি। পরিস্থিতি এখন শান্ত আছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন