দেশের প্রথম করোনা শনাক্ত উপজেলায় প্রথমদিনে টিকা নিয়েছে ৮ জন

১১:১০ পূর্বাহ্ন | সোমবার, ফেব্রুয়ারী ৮, ২০২১ ঢাকা
vaxin

মেহেদী হাসান সোহাগ, স্টাফ রিপোর্টার, মাদারীপুর- সারা দেশের মধ্যে মাদারীপুুরে প্রথম দিনে ৮৩ জন করোনা টিকা নিয়েছে। জেলায় ৮টি বুথে প্রায় ১৬শ জনকে টিকা দেয়া সক্ষমতা থাকলেও প্রথমদিনে জেলায় টিকা নিয়েছে ৮৩ জন। আর বাংলদেশের মধ্যে জেলার শিবচরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হলেও সেই উপজেলায় দুটি বুথে টিকা নিয়েছে মাত্র ৮ জন। তবে সদর উপজেলায় দুটি বুথে ৫৫ জন টিকা নিয়েছে।

মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন ও মাদারীপুর পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ মাহাবুব হাসান ও সিভিল সার্জন মো. সফিকুল ইসলামের উপস্থিতিতে রবিরার (৭ ফেব্রয়ারি) সকালে ডা. শক্তি রঞ্চন মন্ডলকে প্রথম টিকা দেয়ার মধ্যে দিয়ে এ করোনা টিকা দেয়া শুরু হয়।

সিভিল সার্জন অফিস সুত্রে জানা যায়, মাদারীপুর জেলার চারটি উপজেলার প্রতিটি উপজেলায় করোনা টিকা দেয়ার জন্য দুটি করে বুথ চালু করা হয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় দুটি বুথে ৫৫জন, কালকিনি উপজেলা দুটি বুথে ১০জন, রাজৈর উপজেলায় দুটি বুথে ১০জন আর শিবচরে উপজেলায় দুটি বুথে ৮ জন টিকা নিয়েছে। পুরো জেলায় ৮৩জন টিকা নিয়েছে। প্রতিদিন প্রতিটি বুথে ১৫০ থেকে ২শজন টিকা নিতে পারবে।

সারা দেশের ন্যায় গত শুক্রবার (২৯ জানুয়ারী) মাদারীপুর জেলায় ৩৬হাজার ডোজ করোনা টিকা আসে। সেগুলো মাদারীপুর জেলার ইপিআই কোল্ডস্টোরে নিরাপদে রাখা হয়।

এরপর সারা বাংলাদেশে সাথে রবিবার মাদারীপুরের টিকা দেয়া শুরু করা হয়। মাদারীপুর প্রথম টিকা গ্রহন করে বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএফ) এর মাদারীপুর জেলা শাখার সা.সম্পাদক ডা. শক্তি রঞ্চন মন্ডল।

মাদরীপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ইকরাম হোসেন জানান, জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন শ্রেনীর মানুষের উপস্থিতিতে মাদারীপুর প্রথম টিকা নিয়েছে বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) এর একজন ডাক্তার এরপর পর্যায়ক্রমে সদর উপজেলার ৫৫ জনকে টিকা দেয়া হয়েছে। আমাদের সদর উপজেলার দুটি বুদ রয়েছে, যেখানে রেজিস্টেশন অনুযায়ী টিকা দেয়া হবে। প্রতিটি বুথে ১৫০ থেকে ২শজন প্রতিদিন টিকা নিতে পারবে।

মাদারীপুর সিভিল সার্জন অফিস প্রতিনিধি ডা. এস এম খলিলুলজ্জামান জানান, সারা বাংলাদেশের মধ্যে আমরাও আমাদের মাদারীপুরে প্রথম দিনে আমরা ৮৩ জনকে টিকা দিতে পেরেছি। এরমধ্যে মুক্তিযোদ্ধা, ডাক্তার নার্স, পুলিশ, আনসার, সাধারণ মানুষ, স্থানীয় প্রতিনিধিসহ সব শ্রেণীর মানুষকে টিকা দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সবাইকেই টিকা দেয়া হবে। আজকে যাদের টিকা দেয়া হয়েছে তাদের দীর্ঘসময় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল। আল্লাহুর রহমতে কোন পাশ্বপ্রতিক্রিয়া হয় নাই। আমি সবাইকে আহব্বান জানাবো সবাই যেন করোনা টিকা নেয়।