সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রমাণ করুন আল জাজিরার প্রতিবেদন মিথ্যা: মির্জা আব্বাস

৫:৩৯ অপরাহ্ন | সোমবার, ফেব্রুয়ারী ৮, ২০২১ জাতীয়
mirza abbas

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- কাতারভিত্তিক আন্তর্জাতিক সম্প্রচারমাধ্যম ‘আল-জাজিরা’ বাংলাদেশ সম্পর্কে যে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, সেটি যে মিথ্যা- তা প্রমাণ করতে আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।

আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক প্রতিবাদ সমাবেশে এ আহ্বান জানান তিনি।

আব্বাস বলেন, ‘এই সরকারকে বলতে চাই, আপনারা প্রমাণ করুন আল-জাজিরায় যা কিছু আছে সব মিথ্যা। আমরা আপনাদের সমর্থন দেব।’

আল জাজিরায় প্রকাশিত প্রতিবেদন সম্পর্কে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘এ বছর আমাদের স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীর বছর। আমি শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের এবং আমার নেতা স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি। আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছি, দেশ স্বাধীন করেছি; এ কথা শোনার জন্য নয় যে, বাংলাদেশ একটি মাফিয়া দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। এ কথা শোনার জন্য নয়; বাংলাদেশ একটা মাফিয়া রাষ্ট্র। এ কথা আমরা আর কখনো শুনতে চাই না। আমরা সরকারকে বলতে চাই; আপনারা দয়া করে প্রমাণ করুন আল-জাজিরায় যা কিছু আসছে সব মিথ্যা। আমরা আপনাদের সমর্থন দেবো, আমরা আপনাদের সাহায্য করবো। প্রমাণ করেন। শুধু মুখে ফাঁকা বুলি আওড়াচ্ছেন।’

আব্বাস আরও বলেন, ‘একজন মন্ত্রী আছেন, কী বলব নাম বলতে ঘৃণা লাগে। কি কয়, না কয় তার কোনো হিসাব নাই। কয় এই সমস্ত বাজে কথা। আমরা মামলা করবো। এই প্রসঙ্গ আমার এক বন্ধু খুব খারাপ ভাষায় বলেন আরকি- যে কাজটা করতে পারবেন না, সেটা নিয়ে আর টানাটানি কইরেন না। মামলা করলে মামলা করে দেখান। ঠিক আছে। কিন্তু এই কথা আমরা শুনতে চাই না স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীতে যে, বাংলাদেশ মাফিয়া রাষ্ট্র। এটা দুঃখজনক, দুর্ভাগ্যজনক।’

এসময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রা য়সরকারের সমালোচনা করে বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে শাস্তির নামে অপমান করা হয়েছে। তিনি কোনও অন্যায় করেননি। তিনি কোনও টাকা আত্মসাৎ করেননি। তাঁর সম্পদের হিসাব ডেবিট কে দিয়েছিল‌। তারপরও কেন তাকে কারাগারে দেয়া হলো? কারণ বিদেশের তাবেদারি করতে হলে খালেদা জিয়া মুক্ত থাকতে পারে না। ‌গণতন্ত্রহীন রাষ্ট্র তৈরি করতে গেলে তিনি বাইরে থাকতে পারেন না। বাংলাদেশে দুর্নীতির অভয়ারণ্য তৈরি করতে হলে খালেদা জিয়াকে জেলে বন্দি করে রাখতে হয়।

গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, আজকে বাংলাদেশের জনগণ দেশের দুর্নীতির কাহিনি জানে। এই দুর্নীতিগ্রস্ত দেশকে যদি বাঁচাতে চান, যদি গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে চান তাহলে অলিখিত যুদ্ধে শামিল হতে হবে। এই যুদ্ধ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় হবে। এই যুদ্ধে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরে বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে।