কক্সবাজারে বিয়ে ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কায় কিশোরীর আত্মহত্যা

৪:০৩ অপরাহ্ন | শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ১৯, ২০২১ চট্টগ্রাম
লাশ উদ্ধার

শাহীন মাহমুদ রাসেল, কক্সবাজার সংবাদদাতা: বিয়ের কথাবার্তা প্রাথমিকভাবে চলমান থাকা হবু স্বামী তার হবু স্ত্রী কাছে নিয়মিত যৌতুক দাবি করে আসছিল। এমনকি যৌতুকের দাবি পূরণ করতে না পারলে বিয়ে হবেনা বলে দেন হুমকি।

হবু স্বামীর এমন হুমকি ধমকিতে বিয়ে হবেনা এমন আশঙ্কায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার শাহপরীর দ্বীপ এলাকার মাহফুজা বেগম (১৭) নামের এক কিশোরী। এমন অভিযোগ পরিবারের।

বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে আত্মহত্যার পর পুলিশ তার মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে ময়নাতদন্ত শেষে বিকাল ৪টার দিকে তার লাশ গ্রামের বাড়িতে ফেরত আনা হয়। স্থানীয় রাস্তার মাথা ইদগাহ মাঠে তার জানাজা ও তৎসংলগ্ন গোরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

সে টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ ডেইল পাড়ার মোহাম্মদ ইসলামের মেয়ে। এ ঘটনায় হবু স্বামী স্থানীয় ডেইল পাড়ার বাসিন্দা আব্দুল গাফ্ফারের ছেলে নুর হাসানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে নিহতের পরিবার।

মেয়ের বাবা মোহাম্মদ ইসলাম বলেছেন, আমি আমার স্ত্রীকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য টেকনাফ গিয়ে ছিলাম। বাড়ি থেকে মেয়ের আত্মহত্যার খবর শুনে ছুটে আসি। পরে বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে পুলিশকে অবহিত করি।

তিনি আরো বলেন, আমার মেয়ে ডেইল পাড়া গ্রামের আব্দুল গাফ্ফারের ছেলে নুর হাসনের জন্য বিয়ের কথাবার্তা চলছিল। সে সুবাদে উভয় পরিবারের মধ্যে যোগাযোগ ছিল। আমাদের অনুপস্থিতির সুযোগে সে ওই দিনও আমার বাড়িতে আসছিল বলে আমার আরেক মেয়ে জানিয়েছে, এমনকি মেয়ে আত্মহত্যার পর সে নাকি মেয়েকে মাথায় পানি দিয়ে হুশ করার চেষ্টা করেছিল। পরে মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর সে পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে সাবরাং ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার রেজাউল করিম বলেন, আমার এলাকায় একজন কিশোরীর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। ময়না তদন্ত শেষে তার দাফন কাফনও সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে টেকনাফ মডেল থানার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, শাহ পরীর দ্বীপে আত্মহত্যার ঘটনার খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা করেছিলাম। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে প্রাথমিক অভিযোগ জানানো হয়েছে। এ ব্যাপারে পরবর্তী আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।