🕓 সংবাদ শিরোনাম

রংপুরে ট্রাকচাপায় প্রাণ গেল ৩ নারী শ্রমিকেরভুয়া স্বাক্ষর দিয়ে মিথ্যা অভিযোগ, প্রতিবাদে মানববন্ধনমানিকগঞ্জের কেন্দ্রে গুলোতে পৌঁছেছে নির্বাচনী সামগ্রী, ব্যালট যাবে সকালেমুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীবগুড়ায় চেয়ারম্যান পদে ভাইয়ের প্রতিদ্বন্দ্বী ভাই!শরীয়তপু‌রে নির্বাচনী সহিংসতায় দলীয় কর্মীর মৃত্যুতে সংবাদ স‌ম্মেলনমন্ত্রিত্ব একটি চ্যালেঞ্জিং জব: কাদেরটাঙ্গাইলে শ্রমিক লীগ নেতা হত্যায় মামলা, গ্রেপ্তার ২ছোটবেলায় আমরাও হাফ ভাড়ায় চলেছি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসংসদে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের পক্ষে কথা বলে তোপে বিএনপির হারুন

  • আজ রবিবার, ১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ ৷ ২৮ নভেম্বর, ২০২১ ৷

সৈয়দ আবুল মকসুদ আর নেই


❏ মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী ২৩, ২০২১ গুণীজন সংবাদ

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক: লেখক, গবেষক, কলামিস্ট, সৈয়দ আবুল মকসুদ মারা গেছেন।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সংবাদমাধ্যমকে মরহুমের ছেলে সৈয়দ নাসিফ মকসুদ জানান, ‘বিকালে বাবা হঠাৎ করে শ্বাসকষ্টে ভুগলে আমরা তক্ষুনি তাকে স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে আসি। একটু আগে তিনি মারা যান।’

সৈয়দ আবুল মকসুদ বাংলাদেশের রাজনীতি, সমাজ, সাহিত্য ও সংস্কৃতি নিয়ে নানা বই ও প্রবন্ধ লিখেছেন। বিখ্যাত সাহিত্যিক ও রাজনীতিবিদদের জীবন ও কর্ম নিয়ে গবেষণামূলক প্রবন্ধ লিখেছেন। পাশাপাশি কাব্যচর্চাও করেছেন। তার রচিত বইয়ের সংখ্যা চল্লিশের ওপর। বাংলা সাহিত্যে সামগ্রিক অবদানের জন্য তিনি ১৯৯৫ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

সৈয়দ আবুল মকসুদ সাহিত্যিক হিসেবেও খ্যাতিমান ছিলেন। ১৯৮১ সালে তার কবিতার বই বিকেলবেলা প্রকাশিত হয়। ১৯৮৭ সালে তার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ দারা শিকোহ ও অন্যান্য কবিতা প্রকাশিত হয়। মানবাধিকার, পরিবেশ, সমাজ ও প্রেম নিয়ে তিনি কবিতা লিখেছেন। তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বুদ্ধদেব বসু, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী, মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী প্রমুখ প্রখ্যাত সাহিত্যিক ও রাজনীতিবিদদের জীবন ও কর্ম নিয়ে গবেষণা করেছেন।

তিনি তার গবেষণাধর্মী প্রবন্ধের জন্য সুপরিচিত। তার প্রবন্ধসমূহ দেশের রাজনীতি, সমাজ, সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দেয়। পাশাপাশি কাব্যচর্চাও করেছেন। তার রচিত বইয়ের সংখ্যা চল্লিশের উপর। ‘জার্নাল অব জার্মানি’ তার লেখা ভ্রমণকাহিনী। বাংলা সাহিত্যে সামগ্রিক অবদানের জন্য তিনি ১৯৯৫ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।