• আজ সোমবার। গ্রীষ্মকাল, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। বিকাল ৫:২৫মিঃ

নোয়াখালী আবারো রণক্ষেত্র, আ.লীগের দু’গ্রুপের গোলাগুলিতে নিহত ১

১১:৪৬ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, মার্চ ৯, ২০২১ ফিচার

মো: ইমাম উদ্দিন সুমন, নোয়াখালী প্রতিনিধি: মির্জা কাদেরের অনুসারীদের হামলা ও ককটেল বিস্ফোরণে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ সভার শেষ মুহূর্তে হামলার অভিযোগ করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

এ ঘটনায় একজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে তাৎক্ষণিক নিহতের পরিচয় জানা যায়নি। এ সময় দু’পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (৯ মার্চ) রাত ৭টার দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খাঁনের ওপর মির্জা কাদেরের নেতৃত্বে হামলার প্রতিবাদে বসুরহাট বাজারের রুপালী চত্তরে আয়োজিত প্রতিবাদ সভার শেষ মুহূর্তে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

কাদের মির্জার ভাগনে খিজির হায়াত খাঁন গ্রুপের অন্যতম নেতা ফখরুল ইসলাম রাহাত জানান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তি যোদ্ধা খিজির হায়াত খাঁনের ওপর কাদের মির্জার নেতৃত্বে হামলার প্রতিবাদে মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে রুপালী চত্তরে প্রতিবাদ সভা চলছিল। প্রতিবাদ সভার একেবারে শেষ মুহূর্তে মির্জা কাদেরের অনুসারীরা বনফুলের মাঝখানের গলি থেকে সভায় ককটেল ও ছোড়াগুলি ছোঁড়ে এবং সভার পার্শ্ববর্তী এলাকায় ব্যাপক ককটেল বিষ্ফোরণ করে একটি নৈরাজ্যকর পরিবেশ সৃষ্টি করে। এ সময় রাজিব নামে এক পায়ে গুলিবিদ্ধ হয় এবং একজন বোমার স্পিন্টাে আহত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্যমতে, সভাস্থল থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এক সাথে হয়ে মির্জা কাদেরের অনুসারীদের প্রতিরোধ করতে গেলে মাকসুদাহ গার্লস স্কুল রোডে দু’গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা, ককটেল বিস্ফোরণ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এসময় পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

তবে ঘটনার অল্প সময়ের মধ্যে পুলিশ দু’পক্ষের মাঝখানে অবস্থান নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে। পুরো বসুরহাট বাজার জুড়ে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ফোনে জানান, গতকাল যারা মুজিব শতবর্ষ উদযাপনের মঞ্চ ভাঙচুর করেছে জনগণ আজকে তাদের প্রতিহত করেছে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিনার ইনচার্জ (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি ফোনে কল দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।