• আজ মঙ্গলবার। গ্রীষ্মকাল, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২০শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সকাল ৬:৩৬মিঃ

হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি এড়াতে তৈলাক্ত মাছ খান

১০:২৮ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, মার্চ ১১, ২০২১ লাইফস্টাইল
Oil fish

লাইফস্টাইল ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনে সুস্থ থাকতে খাওয়া-দাওয়া একটা বড়ো ভূমিকা পালন করে। অনেকের খাওয়ার ব্যাপারে অনেক বিচার রয়েছে। কিন্তু তা সত্বেও আমরা জানি সুস্থ থাকতে প্রোটিন কতটা জরুরি।

অনেকেই মাছ ভালোবাসেন না। কিন্তু সেক্ষেত্রে একমাত্র শাকাহারী ছাড়া সকলকেই খেতে হবে নিয়ম করে এই মাছ। বিভিন্ন মাছে বিভিন্ন রকমের পুষ্টিগুণ রয়েছে যা আমরা এড়িয়ে যেতে পারি না। তবে সবথেকে বেশি পুষ্টি পাওয়া যায় তৈলাক্ত মাছগুলিতে। তবে ডায়েট করা মানেই যথেচ্ছভাবে ভালো খাবার খাওয়া নয়। এখানেও থাকতে হবে সজাগ। মেপে খেতে হবে যে কোনো খাবার এটা আমরা সকলেই জানি।

সেক্ষেত্রে এই মাছ আপনারা খান প্রতি সপ্তাহে দুবার। এতে ভবিষ্যতে হার্টের অসুখ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। বিজ্ঞান বলছে কার্ডিওভাসকুলার রোগ নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে এই মাছ। যারা ইতিমধ্যেই স্ট্রোক বা হৃদ রোগে ভুগছেন তারাও পাবেন রেহাই এই সমস্যা থেকে যদি নিয়মিত এই মাছ তারা খান। একটি নতুন গবেষণা এমনটাই বলছে এখন। মাছে যে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডই থেকে সেটি প্রকৃতপক্ষে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের মতো বড় সমস্যাগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম।

প্রতি সপ্তাহে তাই ওমেগা সমৃদ্ধ মাছ খেলে এই প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেকটাই বেড়ে যায়, বলছেন গবেষকরা। কার্ডিওভাসকুলার রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা এই মাছ যত খাবেন তত তাদের ভাস্কুলার সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমবে। ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডে এমন একটি ক্ষমতা আছে যা শরীরে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমিয়ে দেয়। হার্টে রক্ত জমাট বাঁধার সমস্যা থাকলে তা থেকেও নিষ্কৃতি দেবে এই বিশেষ খাবারটি।

প্রায় এক লক্ষ বিরানব্বই হাজার মানুষের উপরে গবেষণা চালানো হয়েছিল। ৫২ হাজার ব্যক্তির ইতিমধ্যেই ভাস্কুলার সমস্যা ছিল। যারা কখনোই হৃদ রোগে আক্রান্ত হয়নি, তাদের ক্ষেত্রে মাছ খাওয়ার বিশেষ প্রভাব দেখা যায়নি এই পরীক্ষায়। গবেষকরা বলেছেন যাদের মধ্যে ভাস্কুলার সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম তারাও ওমেগা সমৃদ্ধ মাছ খেলে ভবিষ্যতে ভাস্কুলার সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা কমবে।