• আজ ১লা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিক্ষার্থীদের টিউশন ফিও দেবে সরকার, আবেদন শুরু

১০:৫৯ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, মার্চ ১১, ২০২১ ফিচার, শিক্ষাঙ্গন
student

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- উপবৃত্তির পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের এবার টিউশন ফিও দেবে সরকার। এ জন্য দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর কাছ থেকে আবেদন চাওয়া হয়েছে। ১৮ মার্চ থেকে আবেদন করতে পারবে শিক্ষার্থী। সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির আওতায় এই সহায়তা দেওয়া হবে। গত মঙ্গলবার (৮ মার্চ) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষাসহায়তা ট্রাস্ট থেকে এই আবেদন চেয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড (সাধারণ) এবং বাংলাদেশ মদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের আওতাধীন দেশের সমগ্র এলাকার মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ষষ্ট থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত অধ্যয়নরত আর্থিকভাবে অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি, টিউশন ফি এবং অন্যান্য সুবিধাদি প্রদানের লক্ষ্যে দেশের সমগ্র এলাকার (মেট্রোপলিটন শহর ও জেলা সদরের পৌর এলাকাসহ) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির আওতাভুক্ত করার জন্য দরখাস্ত আহ্বান করা যাচ্ছে।

আবেদনের নিয়মাবলি :

১। সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির আওতাভুক্ত নয় এমন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এ কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত হতে হলে শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক পাঠদানের অনুমতি বা স্বীকৃতি থাকতে হবে। সরকারি, বেসরকারি এমপিও বা নন-এমপিও উভয় ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই আবেদন করতে পারবে।

২। সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি/গভর্নিং বোডির অনুমোদনের রেজুলেশন, শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমতি বা স্বীকৃতিপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি এবং সহযোগিতা চুক্তিপত্র আক্ষরপূর্বক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধান উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার মাধ্যমে স্কিম পরিচালক বরাবর আগামী ১৮ মার্চের মধ্যে আবেদন করবেন। ম্যানেজিং কমিটি/গভর্নিং বডি না থাকলে সহযোগিতা চুক্তিপত্রে সভাপতির স্বাক্ষরের স্থলে এবং উপবৃত্তির অন্যান্য কাগজপত্রে (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (উপজেলার ক্ষেত্রে) এবং মেট্রোপলিটান এলাকার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট জেলা শিক্ষা অফিসার স্বাক্ষর করবেন। সহযোগিতা চুক্তিপত্রের নমুনা কপি উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার দফতরে অথবা মাউশি এবং প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষাসহায়তা ট্রাস্টের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

৩। ইতোপূর্বে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী এবং খুলনা মেট্রোপলিটন এলাকার মাধ্যমিক পর্যায়ের (ষষ্ট-দশম) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কোনো উপবৃত্তি প্রকল্প/কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত ছিল না। বর্তমানে উক্ত এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও উপবৃত্তি কর্মসূচির আওতাভুক্ত হতে পারবে।

৪। দেশের ৩টি পার্বত্য জেলা ব্যতীত অন্য ৬১টি জেলা সদরের পৌরসভা এলাকার মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত ছিল না। বর্তমানে সকল জেলা সদরের পৌরসভা এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির আওতাভুক্ত হবে। যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ইতোপূর্বে কোন উপবৃত্তি প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত ছিল সেসব প্রতিষ্ঠানকে নতুনভাবে এ কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য আবেদন করার প্রয়োজন নেই। তবে এ ক্ষেত্রে উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসাররা উক্ত প্রতিষ্ঠানসমূহের ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড গ্রহণের জন্য তাদের তালিকা স্কিম পরিচালক বরাবর প্রেরণ করবেন।

৫। ইতোপূর্বে যেসব উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ “উচ্চ মাধ্যমিক উপবৃত্তি প্রকল্প-এর অন্তর্ভুক্ত ছিল সেসব প্রতিষ্ঠানের নতুনভাবে আবেদনের প্রয়োজন নেই।

৬। সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির স্কিম ডকুমেন্টে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অনুমোদিত কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা শাখা এ কর্মসূচির আওতাভুক্ত করার উল্লেখ না থাকায় উক্ত প্রকারের শিক্ষার্থীরা এ উপবৃত্তি কর্মসূচির আওতায় উপবৃত্তি পাবে না। তবে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের আওতাভুক্ত ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা (বিএম) শাখায় পাঠদানকৃত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ এ কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত করার লক্ষ্যে স্কিম ডকুমেন্ট সংশোধনের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগে প্রস্তাব প্রেরণ করা হয়েছে। উক্ত প্রস্তাব অনুমোদিত হলে বিএম শাখার শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

৭। কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্যাদিসহ (২নং নিয়মে বর্ণিত) আবেদনপত্র সংশ্লিষ্ঠ উপজেলা/থানা মাধ্যমকি শিক্ষা কর্মকর্তার দফতরে জরুরিভাবে দাখিল করতে হবে। আবেদন প্রাপ্তির পরে সংশ্লিষ্ঠ ইউএসইও/টিএসইও তথ্যাদি যাচাই-বাছাই করে তার সুপারিশসহ আবেদনপত্র আগামী ১৮ মার্চের মধ্যে স্কিন পরিচালকের দফতরে পৌঁছাতে হবে। উল্লেখ্য যে, আবেদনের হার্ডকপি ডাকযোগে শিক্ষা ভবন, দ্বিতীয় ব্লক, পাঁচতলা, মাধ্যমিক ও উচ্চ অধিদফতর, বাংলাদেশ, ঢাকা-১০০০ ([email protected]) ইমেইল ঠিকানায় প্রেরণ করতে হবে।

৮। নির্ধারিত তারিখের পরে কোনো আবেদন গ্রহণ বা নতুন কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এ কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত করা হবে না। তাই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আবেদনপত্র প্রেরণপূর্বক দরিদ্র শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রাপ্তির সুযোগ করে দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ঠ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধান এবং ইউএসইও/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো।