সংবাদ শিরোনাম

ছাত্রলীগ নেতার প্যান্ট চুরির ভিডিও ভাইরাল!পাটগ্রামে ইউএনও’র উপর হামলা, আটক ৬আগের সব রেকর্ড ভেঙ্গে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ৮৩ জনেরশফী হত্যা মামলা: মামুনুল-বাবুনগরীসহ ৪৩ জনকে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদনখালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় সারাদেশে দোয়া কর্মসূচিরোহিঙ্গা শিবিরে ফের অগ্নিকান্ডসালথায় তান্ডব: এসিল্যান্ডের বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগের সত্যতা মিলেনিশাহজাদপুরে কৃষকদের মাঝে হারভেস্টার মেশিন বিতরণচাঁদপুরে গণমাধ্যম সপ্তাহের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপিশ্রমিকদের যাতায়াতের ব্যবস্থা না করলে আইনি পদক্ষেপ : শ্রম প্রতিমন্ত্রী

  • আজ ৩০শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সেদিন পুলিশ না থাকলে হতাহতের ঘটনা বেশি ঘটত: সুনামগঞ্জের এসপি

৪:১৯ অপরাহ্ন | রবিবার, মার্চ ২১, ২০২১ সিলেট
asp

জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি- সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেছেন, শাল্লার নোয়াগাঁও গ্রামের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে শহীদুল ইসলাম স্বাধীন মিয়ার বিরোধ ছিল, পুলিশ ওই বিষয়ে তদন্ত করছে। তিনি বলেন, ঘটনার দিন পুলিশ না থাকলে হতাহতের ঘটনা বেশি ঘটত।

রবিবার (২১ মার্চ) দুপুরে সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশের আয়োজনে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে প্রেস বিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।

পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, সেদিন পুলিশ নোয়াগাও গ্রামের পশ্চিম দিকে অবস্থান করে, আর হামলাকারীরা নদী পাড় হয়ে পূর্ব দিক দিয়ে উঠে কিছু বাড়ি ঘরে হামলা চালায়। নোয়াগাঁও গ্রামের বেশির ভাগ মানুষ খুবই গরীব তাই তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছিল তা ভাংচুর করা হয়। অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছার পূর্বে যা ঘটছে এরপর আর কোন কিছুই হয়নি। পুলিশ সব সময় সবার নিরাপত্তা নিয়োজিত আছে। ঘটনার শুরু থেকেই আমাদের পক্ষ থেকে সকল প্রকার প্রদক্ষেপ নেয়া হয়েছিল।

সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার বলেন, বুধবার (১৭ মার্চ) সকালে ৪ থেকে ৫টা গ্রামের মানুষ নোয়াগাঁও গ্রামে অবস্থান করছিল, তবে কতজন লোক সেখানে ছিল, সেটা বলা সম্ভব না, তবে একটা মেসেজ দিতে পারি অকারণে কাউকে হয়রানি করা হবে না।

তিনি বলেন, যে দিন ঘটনাটি ঘটে সেই দিন জাতির পিতার জন্মদিন ছিল, আমরা সেই প্রোগ্রাম নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম, যেই সময় ওই ঘটনা ঘটে সঙ্গে সাথে আমি আর জেলা প্রশাসক সেখানে গিয়ে ওই গ্রামে সকলের সঙ্গে কথা বলছি, তাদের বলেছি আর আতঙ্ক থাকার দরকার নেই। যত দিন তাদের আতঙ্ক দুর না হচ্ছে পুলিশ সেখানেই থাকবে।

মিজানুর রহমান আরও বলেন, পুলিশ জনগণের বন্ধু, কে ওই ঘটনা ঘটিয়েছে, কারা এর সঙ্গে জড়িত ছিল দ্রুত সময়ের মধ্যে তদন্ত শেষ করে আপনাদেরকে জানিয়ে দেওয়া হবে।

পুলিশ সুপার বলেন, কে কোন দল আমাদের কাছে বিবেচ্য বিষয় না, কে অপরাধী সেটাই আমাদের কাছে বিবেচ্য। আমরা তদন্ত করছি এর বাহিরে আমরা কিছু বলতে চাই না। তবে এই ঘটনায় কাউকে ছাড় নয়, কে দোষী কে নির্দোষ সেটা তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে। এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাহেব আলী পাঠান, সদর থানার ওসি শহিদুর রহমান প্রমুখ।