• আজ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মুন্সিগঞ্জে ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, নিহত-২

৯:১৭ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, মার্চ ২৫, ২০২১ ঢাকা
Monshigonj news

রুবেল ইসলাম তাহমিদ, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: মুন্সিগঞ্জ শহরের উত্তর ইসলামপুর এলাকায় ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে সালিশী বৈঠকে সংঘর্ষে দুইজন নিহত এবং একজন আহত হয়েছে। নিহতরা হলেন, ঐ এলাকার কাসেম পাঠানের পুত্র ইমন পাঠান (২৩) ও বাচ্চু মিয়ার পুত্র সাকিব মিয়া (১৯)।

বুধবার (২৪ মার্চ) রাত সাড়ে ১১টায় সালিশ বৈঠকে সংঘর্ষে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।  এ ঘটনায় গুরুতর আহত আওলাদ হোসেন মিন্টুকে (৪০) ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পরপরই পুলিশ পাঁচজনকে আটক করেছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে ইমন পাঠান একই এলাকার অভিকে চর থাপ্পর মারেন। পরে ইমন পাঠান পক্ষের বড় ভাই মিন্টু অভিকে ডেকে নিয়ে পুনরার মারধর করে। বুধবার রাত ৯টার দিকে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে  বিষয়টি সমাধানে এলাকার মিন্টুর বাড়ির সামনে রাত সাড়ে ১১ টার দিকে সালিশ বৈঠকে বসে উভয় পক্ষের লোকজন। বৈঠকে মীমাংসাও হয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু শেষ পর্যায়ে অভি গ্রুপের লোকজন আকস্মিক তিনজনকে  ছুরিকাহত করে। এতে রক্তাক্ত অবস্থায় তারা মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।  বৈঠকে থাকা লোকজন আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যায়।

মুন্সিগঞ্জ থানার ওসি মো. আবু বকর সিদ্দিক জানান, সৌরভ, অভি ও শামীম গ্রুপ এই হামলার সাথে জড়িত। পুলিশ এই তিনজনের কাউকে গ্রেফতার করতে না পারলেও এই সাথে সংশ্লিষ্ট পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে। এর মধ্যে বৈঠকে উপস্থিত সৌরভের পিতা জামাল প্রধান রয়েছেন।

ওসি আরও জানান, প্রথমে ছুরিকাহত তিনজনকে জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে পেটে ও বুকে জখম ইমন পাঠানকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।  গুরুত্বর আহত সাকিব মিয়া  ও  আঘাতপ্রাপ্ত আওলাদ হোসেন মিন্টুকে উন্নত চিকিৎসার জন্যে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে নেয়ার পর সাকিব মিয়াকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে।