নারায়ণগঞ্জ হেফাজতের জেলা সেক্রেটারি গ্রেপ্তার

boshir
❏ বুধবার, এপ্রিল ১৪, ২০২১ ঢাকা

সময়ের কণ্ঠস্বর, নারায়ণগঞ্জ- হরতালে নাশকতা ও সহিংসতার অভিযোগে পুলিশের দায়ের করা মামলায় হেফাজতে ইসলামের নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সেক্রেটারি মুফতি বশির উল্লাহকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাত ১১টায় সদর উপজেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন সানারপাড় লন্ডন মার্কেট এলাকার নির্মাণাধীন একটি বাড়ি থেকে হেফাজতের এই নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গ্রেফতারকৃত হেফাজত নেতা মুফতি বশির উল্লাহ ২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের হরতাল কর্মসূচিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানবাহন ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগসহ নাশকতা সৃষ্টির ঘটনায় নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। এর যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ পুলিশের কাছে রয়েছে। যে কারণে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, হরতালের নামে ব্যাপক সহিংসতা ও নাশকতা চালানো হয়। এ ঘটনায় পুলিশের করা পাঁচটি মামলার মধ্যে একটি মামলায় মুফতি বশির উল্লাহকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের হরতালে সিদ্ধিরগঞ্জে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সাইনবোর্ড মোড় থেকে শিমরাইল এলাকা পর্যন্ত হরতালকারীরা দখলে রাখে। তারা ব্যাপক সহিংসতা চালায়। যাত্রীবাহী বাস, ট্রাক, পিকআপভ্যান, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস ও অ্যাম্বুলেন্সসহ অন্তত ৫০টি গাড়ি ভাংচুর করা হয়। অগ্নিসংযোগ করা হয় ১৮টি গাড়িতে। এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ৯টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ পাঁচটি ও র‌্যাব একটি এবং ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিরা তিনটি মামলা দায়ের করেন।

মঙ্গলবার ঢাকায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে হেফাজতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নেতা মুফতি শরিফ উল্লাহকে। তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-প্রচার সম্পাদক। ২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বর এলাকায় তাণ্ডবের ঘটনায় দায়ের করা পুরনো মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

রোববার চট্টগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয় কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হককে। তাকেও নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

হেফাজতের আরেক নেতা মুফতি ইলিয়াস হামিদীকে সম্প্রতি গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। মঙ্গলবার তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ সাত দিনের রিমান্ডে নিয়েছে।