মহাসড়ক যানশূন্য, শিমুলিয়ায় ফেরি পারাপার বন্ধ

Monshigonj news
❏ বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৫, ২০২১ ঢাকা

মোঃ রুবেল ইসলাম তাহমিদ, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: সারাদেশের মতোই মুন্সীগঞ্জে বুধবার (১৪ এপ্রিল) সকাল থেকে লকডাউন অব্যাহত রয়েছে। কেউ বিনা প্রয়োজনে বের হলে পুলিশসহ বিভিন্ন সরকারী বাহিনীর জেরার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। রয়েছে ‘ভ্রাম্যমাণ মোবাইল’ টিমও।

এদিকে লকডাউনে শিমুলিয়া  থেকে মাদারীপুরের বংলাবাজার ফেরি পারাপার বন্ধ থাকলেও জরুরি পণ্যবাহী গাড়ি, রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স এবং অতি জরুরী ও রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যবহৃত যানবাহন পারাপারে সীমিতভাবে ফেরি চলাচল ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

অন্যদিকে  শিমুলিয়া ঘাট এলাকাসহ ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে পুলিশের তল্লাশি চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। লকডাউনের আওতামুক্ত গাড়ি ছাড়া অন্য যানবাহনগুলোকে চলাচল এবং ফেরিতে পারাপার করতে দিচ্ছে না প্রশাসন।

জেলা শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, রাস্তায় কেউ বের হলে তিনি পুলিশের জেরার মুখে পড়ছেন। পুলিশ তাদের বাড়িতে অবস্থান করতে বিভিন্ন পরামর্শ দিচ্ছেন।মাওয়া ,পয়েন্ট ও বাসস্ট্যান্ড এলাকায় শুধু ওষুধ ও ফলের দোকান এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান খোলা থাকতে দেখা গেছে। এ ছাড়া জেলা শহরের প্রধান সড়কে ও বিভিন্ন শপিং মল, বিপণিবিতান ও দোকানপাট বন্ধ থাকতে দেখা গেছে।

জেলা পুলিশ সপুার আব্দুল মোমেন পিপিএম সাংবাদিকদের বলেন, ‘লকডাউন কার্যকর করতে মহাসড়কের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। এছাড়া শিমুলিয়া ফেরিঘাটে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। জরুরি প্রয়োজনীয় গাড়ি এবং লকডাউন আওতার বাইরে রয়েছে এমন যানবাহন ছাড়া গতকাল সকাল ৬টার পর থেকে অন্য যানবাহন চলতে দেওয়া হচ্ছে না।’ প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঘর থেকে বের না হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) মাওয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, শুধু জরুরি প্রয়োজনীয় ও লকডাউন আওতার বাইরে থাকা গাড়িগুলোকেই পারাপারের টিকিট দেওয়া হচ্ছে। মাত্র দু-তিন টি ফেরি জরুরি পারাপার করা হচ্ছে।