🕓 সংবাদ শিরোনাম

চুয়াডাঙ্গায় ৬ বছ‌রের শিশুকে ধর্ষণ, অভিযুক্ত যুবক গ্রেফতারলাথি দেওয়া সেই শিক্ষক ছেলের আইনানুগ বিচার চান বাবামানিকগঞ্জে ধর্ষণ মামলায় চেয়ারম্যান গ্রেফতারহামলা ঠেকাতে প্রশাসন ব্যর্থ নাকি গাফিলতি, প্রশ্ন ইনুরগোপালগঞ্জে পিকআপ ভ্যান ও নসিমনের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত ২লিটারে ৭ টাকা বাড়ল সয়াবিন তেলের দামযুবলীগ চেয়ারম্যানের নম্বর ক্লোন করে প্রতারণা, মূলহোতাসহ গ্রেফতার ২ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীর বিকৃত ছবি শেয়ার করায় সাংবাদিক গ্রেপ্তারহিন্দু ভাই-বোনদের ভয় নাই, পাশি আছি: ওবায়দুল কাদেরসহিংসতায় দায়ীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

  • আজ বুধবার, ৪ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২০ অক্টোবর, ২০২১ ৷

প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার; পরিবারের দাবি পরিকল্পিতভাবে হত্যা

setu
❏ মঙ্গলবার, এপ্রিল ২০, ২০২১ ঢাকা

মো. সানোয়ার হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি- ঝুলন্ত অবস্থায় এক প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। সোমবার (১৯ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৭টার দিকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার পেকুয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত উপজেলার বেলতৈল গ্রামের সেলিম মিয়ার মেয়ে ও পেকুয়া গ্রামের রফিক পীরের ছেলে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী ওয়াজেদ মিয়ার স্ত্রী সাদিয়া আক্তার সেতু (২২) বলে জানা গেছে।

এ ঘটনার পর মির্জাপুর থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। তবে নিহতের বাবার দাবি এটি একটি পরিকল্পিত হত্যা।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ২ বছর ৬ মাস আগে দক্ষিণ পেকুয়া গ্রামের রফিক পীরের ছেলে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী ওয়াজেদ মিয়ার সাথে পাশের ইউনিয়নের বেলতৈল গ্রামের সেলিম মিয়ার মেয়ে সাদিয়া আক্তার সেতুর বিবাহ সম্পন্ন হয়। বিবাহের তিন মাস পর স্বামী ওয়াজেদ আফ্রিকা চলে যায়। তারপর থেকে স্বামীর বাড়িতেই থাকতেন সেতু। বিভিন্ন সময় স্বামীর বাড়ির লোকজন সব সময় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো সেতুর উপরে।

নিহতের বাবা সেলিম মিয়া অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেনি তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। দুই লাখ টাকা দিতে না পারায় প্রতিনিয়ত আমার মেয়েকে অত্যাচার করতো। স্বামীর বোন জামাই প্রায় প্রায়ই কুপ্রস্তাব দিতো। আমার ধারণা তাকে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে এখন চালিয়ে দিচ্ছে তারা। আমি এর সঠিক বিচার দাবি করছি।

থানা পুলিশের এস আই আজিম খান বলেন, আমরা ঝুলন্ত অবস্থায় ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করি। সে সময় তাঁর হাত পিছনের দিকে ওড়না দিয়ে পেচাঁনো ছিল। আমরা গৃহবধূর ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি জব্দ করেছি। কিন্তু তাতে কোন সিমকার্ড ও মেমোরী পাইনি।

এ বিষয়ে মির্জাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ রিজাউল হক জানান, প্রাথমিকভাবে ঘটনাটি একটি আত্মহত্যা বলে মনে হচ্ছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার আগে চূড়ান্তভাবে কিছু বলা যাচ্ছেনা। ওই রিপোর্ট অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন