🕓 সংবাদ শিরোনাম

ফ্রান্সের জাতীয় দলে ফিরছেন ”বেনজেমা”কর্ণফুলী থানার পাশেই ছুরিকাঘাতে যুবক খুন সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করায়  ‘মিডিয়া এডুকেটরস নেটওয়ার্ক’ এর প্রতিবাদসাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে আমিরাতে সাংবাদিকদের প্রতিবাদ সভাকক্সবাজারে বিপুল সিগারেটসহ ৩ যুবক আটকরোজিনার সঙ্গে যারা অন্যায় করেছে, তাঁদের জেলে পাঠান: ডা. জাফরুল্লাহকেরানীগঞ্জে ফ্ল্যাট থেকে যুবতীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধারপাটগ্রাম সীমান্তে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের দায়ে নারী ও শিশুসহ ২৪জন আটকসাংবাদিকদের ভয় দেখিয়ে সরকার গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে চায়: ভিপি নুরসাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা নয়, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন: হানিফ

  • আজ বুধবার, ৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৯ মে, ২০২১ ৷

রানা প্লাজা ধসের ৮ বছর, নানা আয়োজনে নিহতদের স্মরণ

rana plaza
❏ শনিবার, এপ্রিল ২৪, ২০২১ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- সাভারের রানা প্লাজা ধসের আট বছর পূর্তি উপলক্ষে নিহত শ্রমিকদের স্মরণে করোনা সংক্রমণ রোধের কারণে স্বাস্থ্যবিধির কথা মাথায় রেখে এবার সীমিত পরিসরে কর্মসূচির আয়োজন করেছে ​নিহত শ্রমিকের পরিবার, আহত শ্রমিক ও শ্রমিক সংগঠনগুলো।

দিনটি উপলক্ষে শনিবার (২৪ এপ্রিল) সকাল থেকেই ধসে পড়া রানা প্লাজার সামনে নিহত শ্রমিকদের পরিবারের সদস্য, আহত শ্রমিকরা ও বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা জড়ো হন। তারা অস্থায়ী শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

নিহতদের রুহের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন। পরে এক বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

সব শেষে রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানার ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে ক্ষতি পূরণের দাবি জানান।

শ্রদ্ধা নিবেদন করতে এসে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার বলেন, ‘৭ বছর পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত রানা প্লাজার বিচারকাজ শেষ হয়নি। প্রতিশ্রুতি মতো দেয়া হয়নি শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ। রানা প্লাজার দুর্ঘটনায় অনেক শ্রমিকের জীবন অন্ধকারে চলে গেছে।

‘সরকার তাদের নামমাত্র ক্ষতিপূরণ দিলেও অনেক পরিবার এখনও মানবেতর জীবনযাপন করছে। তারা রানার ফাঁসিসহ ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকের পুনর্বাসন ও ক্ষতিপূরণের দাবি জানান।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ গার্মেন্টস অ্যান্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশন, জাতীয় শ্রমিক লীগ, রানা প্লাজা গার্মেন্টস শ্রমকি ইউনিয়ন, ল্যাম্প পোস্ট, গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, গণমুক্তি গানের দল, বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতিসহ বেশ কয়েকটি শ্রমিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা। তারা রানা প্লাজার অস্থায়ী শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে নিহতদের স্মরণ করেন।

এদিকে রানা প্লাজা ধসের ৮ বছর উপলক্ষে রানা প্লাজার সামনে যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে অতিরিক্ত আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে।

এদিকে দিনটি স্মরণে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করেছে জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন। একইসঙ্গে রানা প্লাজার ঘটনায় নিহত ও আহতদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ও মালিকের শাস্তির দাবি জানানো হয়েছে।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সংগঠনটি আয়োজিত 'রানা প্লাজা-তাজরিন, নেভার এগেইন' শিরোনামে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

২০১৩ সালের এই দিনে ‍সাভারে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্পের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনা ঘটে। সরকারি হিসাব অনুযায়ী, ভবন ধসে মৃত্যু হয় ১ হাজার ১৩৬ জনের। গুরুতর আহত হয় আরও কয়েক হাজার মানুষ। তাদের অধিকাংশই শ্রমিক।

ওই ঘটনার পরদিনই সাভার থানায় একটি হত্যা মামলাসহ চারটি মামলা করা হয়। পাঁচ দিন পর বেনাপোল সীমান্ত থেকে সোহেল রানাকে গ্রেপ্তার করা হয়। সেই থেকে তিনি কারাগারেই আছেন।

তদন্ত শেষে হত্যা মামলায় সোহেল রানাসহ ৩৮ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেয়া হয়। তবে কোনো একটি মামলাতেও রায় আসেনি।