🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ মঙ্গলবার, ১০ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৬ অক্টোবর, ২০২১ ৷

হাসপাতাল থেকে পালানো সেই ১০ করোনা রোগীকে ধরেছে পুলিশ

joshor
❏ সোমবার, এপ্রিল ২৬, ২০২১ আলোচিত, খুলনা

সময়ের কণ্ঠস্বর, যশোর- যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে যে ১০ জন করোনা রোগী পালিয়েছিলেন তাদের সন্ধান পেয়েছে পুলিশ। এদের মধ্যে সাত জন ভারতফেরত। তাদেরকে এখন যশোর জেনারেল হাসপাতালে হস্তান্তর করা হবে।

গত শুক্র ও শনিবার ভারত থেকে আসা যাত্রীদের মধ্যে সাত জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। পরে তাদের যশোর জানারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। রোববার থেকে তাদের হদিস পাওয়া যাচ্ছিল না। এদের সঙ্গে হাসপাতালে ভর্তি আরও তিন জন করোনা রোগী পালিয়ে যান।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় যশোর পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. তৌহিদুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়া রোগীদের পাওয়া গেছে। তাদের আবারও যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।’

উল্লেখ্য, যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে দশজন করোনা রোগী পালিয়ে যান। তাদের মধ্যে ৭ জন ভারত ফেরত। গতকাল শনিবার সকাল থেকে রবিবার দুপুরের মধ্যে তারা পালিয়ে যান। হাসপাতালের নার্স ও কর্মচারীদের অবহেলার কারণে তারা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন বলে অভিযোগ ওঠে। এতে করে সম্প্রতি বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টিকারী করোনাভাইরাসের ইন্ডিয়ান ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার আশংকা দেখা দেয়।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার ২৩ এপ্রিল সকাল দশটা ৫৭ মিনিটে ভারতফেরত কিছু রোগীকে ভর্তি করা হয়। এরপর রবিবারও রোগী আসে। সবমিলিয়ে দুইদিনে দশজন করোনা রোগী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাদের সবাইকে হাসপাতালের তৃতীয় তলায় করোনা ওয়ার্ডে পাঠানো হয়।

হাসপাতালের ভর্তি রেজিস্টার মতে, ভর্তি রোগীরা হলেন, যশোর শহরের বিমান অফিস মোড়ের আবুল কাসেমের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৫৭), সাতক্ষীরা আশাশুনির জালাল হোসেনের ছেলে মিলন হোসেন (৩২), সাতক্ষীরা কালিগঞ্জের মনতোষ সর্দারের স্ত্রী শেফালি রানী (৪০), যশোর সদর উপজেলার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের একরামুল কবীরের স্ত্রী রুমা (৩০),

যশোর শহরের খালধার রোডের বিশ্বনাথের স্ত্রী মনিমালা দত্ত (৪৯), রাজবাড়ী রামকান্তপুরের গোলাম রব্বানির মেয়ে নাসিমা আক্তার (৫০), খুলনা পাইকগাছার আহমদ সানার ছেলে আমিরুল সানা (৫২), যশোর শহরের ওয়াপদা গ্যারেজ এলকার মৃত ভদ্র বিশ্বাসের ছেলে প্রদীপ বিশ্বাস (৩৭), খুলনা সদরের কলিম কৃষ্ণের ছেলে বিবেকানন্দ (৫২) ও খুলনা রূপসা এলাকার শের আলীর ছেলে সোহেল সরদার (১৭)। তাদের মধ্যে রুমা, ফাতেমা ও মনিমালা দত্ত যশোরের। বাকি ৭ জন ভারত ফেরত।

এ ব্যাপারে জানার জন্য বিকেলে যশোরের সিভিল সার্জন ডা. দিলীপ কুমার রায়কে ফোন দেওয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। ম্যাসেজ দিয়েও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।