🕓 সংবাদ শিরোনাম

খেলার আগে মাঠে ফিলিস্তিনের পতাকা ওড়ালেন কুড়িগ্রামের ক্রিকেটারেরাপাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে থানায় নেওয়া হলো প্রথম আলোর রোজিনা ইসলামকেকর্মস্থলে ফিরতে গাদাগাদি করে রাজধানীমুখী লাখো মানুষশেরপুরে পৃথক ঘটনায় একদিনে ৭ জনের মৃত্যুএক বিয়ে করে দ্বিতীয় বিয়ের জন্যে বড়যাত্রীসহ খুলনা গেল যুবক!আমার মৃত্যুর জন্য রনি দায়ী! চিরকুট লিখে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যাইসরাইলীয় আগ্রাসনের  বিরুদ্ধে ইসলামী বিশ্বের নিন্দার নেতৃত্বে সৌদি আরবত্রিশালে সড়ক দূর্ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যুতে নিহতের বাড়ীতে চলছে শোকের মাতমকলাপাড়ায় এক সন্তানের জননীর মরদেহ উদ্ধারটাঙ্গাইলে কৃষক শুকুর মাহমুদ হত্যা মামলায় গ্রেফতার-১

  • আজ মঙ্গলবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৮ মে, ২০২১ ৷

কেরানীগঞ্জে মার্কেটগুলোতে উপচেপড়া ভিড়, বালাই নেই স্বাস্থ্যবিধির

market
❏ বুধবার, এপ্রিল ২৮, ২০২১ ঢাকা

কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি: করোনার ভয়াবহ আগ্রাসনে বিপর্যস্ত পুরো দেশ। করোনাভাইরাস আক্রান্তের অর্ধেকের বেশি যে শহরের, সেই ঢাকার অন্যতম করোনার হটস্পট কেরানীগঞ্জ সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা এখন জমজমাট বেচা-কেনা। হটস্পট কেরানীগঞ্জে চলাচলের বিধি-নিষেধের তোয়াক্কা না করে অনেকটা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছেন এসব এলাকার বাসিন্দারা।

আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ব্যবসায়িদের কথা বিবেচনা করে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর রবিবার (২৫ এপ্রিল) থেকে কিছু শর্ত সাপেক্ষে দেশের সকল দোকানপাট ও শপিংমল খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন সরকার।

মার্কেট খুলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই হুমড়ি খেয়ে পড়েছে ক্রেতারা। তীব্র গরম এবং করোনার ঝুঁকি- দুটোই উপেক্ষা করে কেরানীগঞ্জের মার্কেটগুলোতে এখন উপচেপড়া ভিড়। ফুটপাত পর্যন্ত ক্রেতার সমাগমে জায়গা জায়গা জটলা। কোথাও নেই স্বাস্থ্যবিধির বালাই।

সরেজমিনে আজ বুধবার (২৮ এপ্রিল) কেরানীগঞ্জ উপজেলার আব্দুল্লাপুর, কাঠুরিয়া, লায়ন সপার্স ওয়ার্ল্ড ও ফ্যামিলি শপিংমল সহ বেশ কিছু মার্কেটে ক্রেতাদের স্বাভাবিক উপস্থিতিতে জমজমাট হয়ে উঠেছে মার্কেটগুলো। মূলত সকাল থেকেই ক্রেতাদের উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে ক্রেতার সংখ্যা। নারী ক্রেতা ও শিশুর সংখ্যায় বেশি দেখা গেছে।

তবে অধিকাংশ মার্কেটেই মানা হচ্ছে না করোনা সতর্কতায় সরকারি নির্দেশনা। দু-একটি মার্কেটের সামনে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। শারীরিক বা সামাজিক দূরত্ব মানা হচ্ছে না যথাযথভাবে। গাদাগাদি করে নারী ও শিশুরা মহানন্দে কেনাকাটা করছেন।

রফিক নামের এক দোকানি বলেন, বেশির ভাগ ক্রেতাই থুতনিতে মাস্ক রেখে কথা বলে। কেউ আবার মাস্ক খুলে পকেটে রেখে দোকানে ঢুকে হাঁচি দেয়। না করি। শোনে না। সচেতন করার চেষ্টা করি। কিন্তু তাদের মানাতে পারি না। তবে অনেকে আবার সচেতন। এদেরকে কিছু বলতে হয় না। এরা বরং উল্টো আমাদের সচেতন থাকতে বলে।

আব্দুল্লাপুর এলাকায় শিশু নিয়ে মার্কেটে আসা সুমি আক্তার নামে এক গৃহিণী সময়ের কণ্ঠস্বর কে বলেন, অনেক দিন লকডাউনে ঘরবন্দি ছিলাম কোথায়ও যেতে পারিনি। এছাড়াও অনেক দিন হলো বাচ্চার কেনাকাটা করি না। তাই ভাবলাম বাসার কাছের মার্কেট থেকে বাচ্চার কিছু কেনাকাটা করি। কিন্তু মার্কেটে এসে দেখি মহিলাদের অনেক ভিড়। যেই দোকানে যাই সেখানেই মহিলাদের ভিড়। এ মার্কেটে অনেকের মুখেই মাস্ক নেই। এতো ভিড় আগে জানলে বাচ্চা নিয়ে মার্কেটে আসতাম না।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত দেবনাথ বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ক্রয়-বিক্রয়ের বিষয়ে এবং সময়সীমা কঠোরভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে। আমরা সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছি।