• আজ সোমবার, ৩১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৪ জুন, ২০২১ ৷

মির্জাপুরে শিশু মৃত্যু, পৌনে ২ মাসেও তদন্ত প্রতিবেদন দিতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ

deyan
❏ বুধবার, মে ৫, ২০২১ ঢাকা

মো. সানোয়ার হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি- টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে চাঞ্চল্যকর ভুল চিকিৎসায় ৩য় শ্রেণির শিক্ষার্থী সাজিদ (০৯) মৃত্যুর ঘটনার ১ মাস ২২ দিন পার হয়ে গেলেও উক্ত ঘটনায় গঠিত তদন্ত প্রতিবেদন দিতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ।

নিহত টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটি সুশিনারা গ্রামের মো. জুয়েল মিয়ার ছেলে বলে জানা গেছে।

নিহত সাজিদের পরিবার সুত্রে জানা যায়, গত ১৩ মার্চ উপজেলার পৌরসদরে অবস্থিত দেওয়ান হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নার্সের একাধিক ইনজেকশন প্রয়োগ করার ফলে চিকিৎসাধীন শিশু সাজিদের মৃত্যু হয়। এ ঘটনার পর থেকেই উধাও হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষসহ কর্মরত নার্স ও ডাক্তার। বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার জন্য নিহতের পরিবারকে মোটা অঙ্কের টাকা দেয়ার পায়তারা করে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ।

সরজমিনে দেওয়ান হাসপাতাল পরিদর্শন করতে গেলে উক্ত হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুরুজ দেওয়ান বলেন, আমরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তার অনুমতি নিয়েই হাসপাতালটি চালু করেছি। ওই ঘটনার পর থেকে হাসপাতাল বন্ধ ছিলো কেনো জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা ভয়ে আমাদের প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ রেখেছিলাম।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানা গেছে, এ শিশু মৃত্যুর ঘটনার পর তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে। কমিটির সদস্যরা হলেন, ডাঃ বর্নালী দাস, ডাঃ ফাহমিদা বায়েস ও স্যানিটারি ইন্সপেক্টর ইসরাত জাহান। তবে ওই কমিটিতে শিশু বিশেষজ্ঞ না থাকায় তদন্তের কাজ থেমে যায়।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মাকসুদা খানম এই প্রতিবেদককে বলেন, আমরা তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছিলাম কিন্তু শিশু বিশেষজ্ঞ না থাকার কারণে প্রতিবেদন করা সম্ভব হয়নি। তবে, বিষয়টি টাঙ্গাইল জেলা সিভিল সার্জনকে জানিয়েছি।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল জেলা সিভিল সার্জন ডা. আবুল ফজল মোঃ সাহাবুদ্দিন খান জানান, তদন্ত কমিটির দুই সদস্য করোনাক্রান্ত হওয়ায় তদন্ত কাজ শুরু করা যায়নি। তবে বর্তমানে চলমান লকডাউন শেষ হলেই তদন্ত কমিটি তাদের কাজ শুরু করবে।