সবার আগে বাংলাদেশকে টিকা দিন: যুক্তরাষ্ট্রকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

momen
❏ বৃহস্পতিবার, মে ৬, ২০২১ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- ভারত বা অন্য যে কোনো দেশে যুক্তরাষ্ট্রের টিকা দেওয়ার আগেই বাংলাদেশকে টিকা দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

 

বৃহস্পতিবার (৬ মার্চ) ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ আহ্বান জানান।

 

সাক্ষাৎ শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ঢাকাস্থ যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস বাংলাদেশে টিকা দেওয়ার বিষয়ে সর্বাত্মক চেষ্টা করছে বলে রাষ্ট্রদূত মিলার জানিয়েছেন।

 

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, রাষ্ট্রদূতকে বলেছি টিকা আমাদের অগ্রাধিকার। এটা যত তাড়াতাড়ি পারেন আমাদের দেন। রাষ্ট্রদূত জানিয়েছে, এ নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। তবে এখনও ফাইনাল হয়নি। পররাষ্ট্র বলেন, আমি রাষ্ট্রদূতকে বললাম আপনারা বলে ইন্ডিয়া টিকা দিয়েছেন।রাষ্ট্রদূত বলেছেন, টিকা দেওয়া হয়নি। টিকা ছাড়া অন্যসব সামগ্রী দেওয়া হয়েছে।

 

তিনি বলেন, মানুষের কল্যান নিয়ে সরকার খুবই চিন্তিত। করোনা ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসায় ভয় পাওয়া যাচ্ছে। কোথাও কোথাও সীমান্তে এই নতুন ভ্যারিয়েন্ট ভাইরাস এসে গেছে বলে জানা গেছে। স্বাভাবিকভাবে আমরা উদ্বিগ্ন। আমাদের কাজ হল টিকা সংগ্রহ করা। ইতিমধ্যে আমরা চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করেছি টিকা আনার বিষয়ে।

 

মোমেন জানান, আগের চিঠিতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ৪০ লাখ ডোজ চেয়েছিল বাংলাদেশ। তবে এখন পরিস্থিতি বুঝে চাহিদা বাড়ানো হয়েছে।

 

তবে কবে নাগাদ এ টিকা এসে পৌঁছাবে তা জানাননি মন্ত্রী। তিনি বলেন, সঠিক দিনক্ষণ দেয়া যাবে না। কিন্তু এ নিয়ে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছে দেশটি।

 

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মিলার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানান, টিকা পাঠাতে ফেডারেল ড্রাগ এ্যাডমিনিস্ট্রেশন বা এফডিএর অনুমতির দরকার হবে।

 

তিনি আরও জানান, ভারত বা অন্য কোনো দেশে টিকা পাঠালে বাংলাদেশও পাবে।

 

দেশে ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু হয় সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া উৎপাদিত টিকা দিয়ে। তবে হঠাৎ ভারতের এ প্রতিষ্ঠান টিকা রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ায় ডোজ সংকটে পড়ে দেশ। এমন বাস্তবতায় চীন ও রাশিয়ার দিকে ঝুঁকছে বাংলাদেশ।

 

মোমেন বলেন, চীন ও রাশিয়ার কাছ থেকে টিকা প্রাপ্তি ও উৎপাদনে অনেক অগ্রগতি আছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ নিয়ে কাজ করছে।

 

তিনি জানান, চীন থেকে উপহারের টিকা বাংলাদেশকে নিজ খরচে বিমান নিয়ে আনতে হবে।

 

ভারতের টিকার আশা বাংলাদেশ এখনও ছেড়ে দেয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, আপৎকালীন সময়ে চালিয়ে নেয়ার জন্যে টিকা পাঠাতে অনুরোধ করা হয়েছে। ইস্যুটা গুরুত্বপূর্ণ।