অক্সিজেন নেই ৫ মিনিট, মারা গেল ১১ করোনা রোগী

corona indea
❏ মঙ্গলবার, মে ১১, ২০২১ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- হাসপাতালে অক্সিজেন ছিল না মাত্র পাঁচ মিনিট। আর এতেই প্রাণ গেল চিকিৎসাধীন ১১ জন করোনা রোগীর।

সোমবার (১০ মে) সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য অন্ধ্রপ্রদেশের তিরুপাতির একটি হাসপাতালে। মৃত রোগীরা সবাই হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, সোমবার সন্ধ্যার দিকে অন্ধ্রপ্রদেশের তিরুপাতির শ্রীভেঙ্কটেশ্বর রামনারায়ণ রুইয়া সরকারি হাসপাতালে অক্সিজেনের সরবরাহে সমস্যা দেখা দেয়। যার কারণে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন রোগীরা বেশ কিছুক্ষণ প্রয়োজনীয় অক্সিজেন পাননি। আর এতেই মারা যান করোনায় আক্রান্ত ১১ জন রোগী।

তবে হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে কর্মরত স্বাস্থ্যকর্মীরা দ্রুত তৎপরতার মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ ফের ঠিক করে রোগীদের জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলেন। যদিও মৃত রোগীদের স্বজন ও পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করছেন যে, একটানা প্রায় ৪৫ মিনিট আইসিইউতে ভর্তি থাকা রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ ছিল।

তবে চিত্তর ডিস্ট্রিক্ট কালেক্টর এম হরি নারায়ণ বলছেন, কর্তব্যরত চিকিৎসকদের তৎপরতায় বড় দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব হয়েছে। তার দাবি, ‘কিছুক্ষণের জন্য অক্সিজেনের চাপ কমে গিয়েছিল। পাঁচ মিনিটের মধ্যেই ফের অক্সিজেন চালুর ব্যবস্থা করা হয়। এর জন্য বড় দুর্ঘটনার থেকে রক্ষা পেয়েছি। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক, ওই সময়ের মধ্যেই ১১ জন রোগী প্রাণ হারিয়েছেন।’

সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, অক্সিজেনের সমস্যা শুরু হওয়ার পর ৩০ জন চিকিৎসক আইসিইউ’তে চিকিৎসাধীন রোগীদের সেবা দেওয়ার জন্য ছুটে গিয়েছিলেন।

অক্সিজেনের ‘সংকট’ না থাকলেও কেবল অক্সিজেন সরবরাহ পাঁচ মিনিটের জন্য বন্ধ থাকাতেই এই বিপত্তি ঘটেছে। ঘটনার পর হাসপাতালে সহিংস আচরণ করেন মৃত রোগীদের আত্মীয়-স্বজনেরা।

এদিকে হাসপাতালে মৃত্যুর ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী ওয়াইএস জগন মোহন রেড্ডি। ঘটনার পর তিনি ডিসিকে পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্তের নির্দেশ দেন।

এ ধরনের ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়, তা নিশ্চিত করতে রাজ্যের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী।

করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় বিপর্যস্ত ভারত। দেশটিতে করোনায় সোমবার পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৪৬ হাজার ১১৬ জনের। ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে ২ কোটি ২৬ লাখ ৬২ হাজার ৫৭৫ জনের দেহে।

এমন বাস্তবতায় বিভিন্ন হাসপাতালে আইসিইউ বেড, অক্সিজেন, প্রয়োজনীয় ওষুধ সংকটের কথা প্রতিনিয়ত আসছে গণমাধ্যমে।