• আজ সোমবার, ৩১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৪ জুন, ২০২১ ৷

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যাত্রী পরিবহনের প্রতিযোগিতায় ট্রাক ও পিকআপ

Tangail pic
❏ মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১ ঢাকা

মোল্লা তোফাজ্জল, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের যাত্রি পরিবহনের প্রতিযোগিতায় নেমেছে ট্রাক আর পিকআপ ভ্যান। ঈদ শেষে কর্মস্থলে যোগ দিতে ফেরা যাত্রীদের নিয়ে গত দুইদিন ধরেই সড়কে বেড়েছে এই যানবাহনগুলোর চলাচল। পণ্য পরিবহনের নিয়োজিত যানবাহনে দেদারসে যাত্রি পরিবহন নিয়ে ক্ষুব্ধ আর হতাশ বাস শ্রমিক আর মালিকরা।

মহাসড়কের আশেকপুর আর রাবনা বাইপাসে সোমবার গিয়ে দেখা যায়, উত্তরবঙ্গ থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী অসংখ্য ট্রাক আর পিকআপ ভ্যান। রোববার সকাল থেকেই মহাসড়ক দিয়ে যাত্রি পরিবহন করছে এ পরিবহনগুলো। চলছে মোটরসাইকেল আর ব্যক্তিগত গাড়িও।

রাবনা বাইপাসে কথা হয় পাবনা থেকে যাত্রি নিয়ে আসা ট্রাক চালক নজরুল এর সাথে। তিনি বলেন, পণ্য পরিবহনের চাপ নেই বলেই তিনি সকালে পাবনা থেকে ঢাকাগামী যাত্রি নিয়ে রওনা দিয়েছেন। গাড়িতে যাত্রি আছেন প্রায় ত্রিশজন। এই যাত্রি পরিবহনে জনপ্রতি পাঁচশ টাকা করে ভাড়া নেয়া হচ্ছে। মামলা দিচ্ছে পুলিশ। এরপরও তারা চালাচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

তবে এ ট্রাকের যাত্রি পোষাক কারখানায় কর্মরত শ্রমিক নূরু মিয়া বলেন, তার কাছ থেকে পাবনা থেকে চন্দ্র পর্যন্ত পৌছে দেয়ার জন্য ৫শ টাকা ভাড়া নেয়া হয়েছে। ছুটি শেষ আর বাস না থাকায় ট্রাকে ঝুঁকি নিয়েই তাদের কর্মস্থলে ফিরতে হচ্ছে।

কুষ্টিয়া ও রাজশাহী চলাচলরত দূরপাল্লার বাস আলম এক্সপ্রেস বাসের মালিক নূর আলম বিদ্যুৎ বলেন, সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে আমার গাড়ি গতকাল রোববার সিরাজগঞ্জ থেকে যাত্রি পরিবহনের চেষ্টা করে। সিরাজগঞ্জ পুলিশ আমার বাসের সকল যাত্রি নামিয়ে দেয় ও গাড়ি আটক রাখে। তবে পুলিশের সামনেই সেই সকল যাত্রিরা ট্রাকে করে ঢাকা, চন্দ্রাসহ বিভিন্ন স্থানে আসেন। বাসে যথাসাধ্য স্বাস্থ্যবিধি মানা হলেও ট্রাকে তো এর বালাই নেই। তাহলে কিভাবে পণ্য পরিবহনের ট্রাক যাত্রি নিয়ে সেতু পারাপারসহ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করছে।

এ প্রসঙ্গে এলেঙ্গ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত বলেন. ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানে যাত্রি পরিবহনের অপরাধে আমরা মামলা দিচ্ছি। তিনি জানান, ঈদের ছুটিতেও মহাসড়ক প্রায় ফাঁকা। সোমবার বিকেল পর্যন্ত সড়কে যানবাহনের চাপ বাড়েনি। মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক বলেও জানান তিনি।