🕓 সংবাদ শিরোনাম

পরীক্ষা এক বছর না দিলে বিরাট ক্ষতি হবে না : শিক্ষামন্ত্রীকর্মীদের আন্দোলনের দিবাস্বপ্ন দেখাচ্ছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদেরকরোনাকালে নার্সদের উৎসাহ-অনুপ্রেরণা দিতে বিভিন্ন হাসপাতালে ছুটে যাচ্ছেন মহাপরিচালকপ্রকাশ্যে একই পরিবারের ৩ জনকে গুলি করে হত্যা, হামলাকারী এএসআই আটকযমুনা নদীর তীররক্ষা বাঁধের নির্মাণ কাজ শুরু হবে ৬ মাসের মধ্যেপাবনার চাটমোহরে সড়ক দুর্ঘটনায় বৃদ্ধের মৃত্যুআশুলিয়ায় মহাসড়ক থেকে শ্রমিকদের সরাতে পুলিশের টিয়ার শেল-জলকামান, নিহত ১দিনেদুপুরে প্রকাশ্যে গুলি করে একই পরিবারের ৩ জনকে হত্যানেতানিয়াহুর জন্য ১০ বছরের কারাদণ্ড অপেক্ষা করছে: আইনজীবীদক্ষিণ কেরানীগঞ্জে ১৯ কেজি গাঁজাসহ আটক ৩

  • আজ রবিবার, ৩০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৩ জুন, ২০২১ ৷

 সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করায়  ‘মিডিয়া এডুকেটরস নেটওয়ার্ক’ এর প্রতিবাদ

Rozina
❏ বুধবার, মে ১৯, ২০২১ শিক্ষাঙ্গন

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় দৈনিক প্রথম আলো’র সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও পরবর্তী সময়ে মামলা দিয়ে হয়রানি করায় প্রতিবাদ এবং নিন্দা জানিয়েছে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের  গণমাধ্যম বিভাগের শিক্ষকেরা।

তারা একজন পেশাদার সাংবাদিকের সঙ্গে এ ধরনের অমানবিক ও অপেশাদারি আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের  গণমাধ্যম বিভাগের শিক্ষকদের সংগঠন  ‘মিডিয়া এডুকেটরস নেটওয়ার্ক’ এর লিখিত প্রতিবাদে জানানো হয়, দীর্ঘদিন ধরে পেশাদারিত্ব ও নিষ্ঠার সঙ্গে সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম সাংবাদিকতা করে আসছেন।  ইতো পূর্বে তিনি বেশ কিছু অনুসন্ধানী সংবাদ করেছেন, যা দেশ, রাষ্ট্র ও জাতির জন্য মঙ্গলজনক।

সম্প্রতি তিনি স্বাস্থ্যসংশ্লিষ্ট কয়েকজন কর্মকর্তা ও কর্মচারীর দুর্নীতি নিয়ে বেশ কিছু প্রতিবেদন করেছেন।লিখিত প্রতিবাদে তারা আরও জানায়, দুর্নীতি একটি রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করে। বিশেষ করে, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিকে কাটিয়ে ওঠার জন্য সরকার যে কৌশল ও পদক্ষেপের মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছে, কিছু কর্মকর্তা ও কর্মচারীর দুর্নীতি সেই অগ্রযাত্রাকে তীব্রভাবে ব্যাহত করছে। রোজিনা ইসলাম সেই সব অপরাধের সংবাদ প্রকাশ করে বরং সরকার, রাষ্ট্র ও জাতির সার্বিক কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন।
তাদের ভাষ্যমতে, ওইসব সংবাদে ক্ষুব্ধ কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রতিশোধপরায়ন হয়ে সাংবাদিক রোজিনাকে সচিবালয়ে আটকে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেছেন এবং তার অনুমতিবিহীন ছবি-ভিডিও তুলে সামাজিকভাবে তাঁকে হেয় করার চেষ্টা করেছেন। এমনকি তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লেও তাঁকে দ্রুত চিকিৎসা দেওয়ার ক্ষেত্রে এতটুকু মানবিকতা প্রদর্শন করা হয়নি। শুধু তা-ই নয়, পরবর্তী সময়ে তার বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে তাকে আরেক দফা  হয়রানি করা হয়েছে।

আমরা শিক্ষকসমাজ মনে করি, এ ধরনের আচরণ শুধু সাংবাদিকতার ওপরই তীব্র আঘাত নয়, বরং তা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এই ঘটনা একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে স্বাধীন সাংবাদিকতা ও সুশাসনের সম্পূর্ণ পরিপন্থী।

‘মিডিয়া এডুকেটরস নেটওয়ার্ক’ এর শিক্ষকরা অতিদ্রুত রোজিনা ইসলামকে নিঃশর্ত মুক্তি এবং মামলার প্রত্যাহারের দাবি জানায়।  সেই সাথে রোজিনার উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত সকলের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।