🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ শুক্রবার, ১১ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ২৫ জুন, ২০২১ ৷

করোনা আক্রান্তের ডায়েট কেমন হওয়া উচিত

diet
❏ বুধবার, মে ১৯, ২০২১ লাইফস্টাইল

লাইফস্টাইল ডেস্ক:  করোনা আক্রান্ত হওয়ার সময় ও সেরে ওঠার পরেও পুষ্টি রোগীর জন্য ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কারণ স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টি সম্বৃদ্ধ খাবার দেহের রোগ প্রতিরোধ সিস্টেমকে ভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত করে। মনে রাখতে হবে যে সব করোনা রোগীর মৃদু উপসর্গ থাকে তারা হয়তো দ্রুত সুস্থ হয়ে যান। কিন্তু তার পরবর্তী কালে সতর্ক না থাকলে ফল হতে পারে মারাত্বক। তাই সুস্থ হয়ে ওঠার পরও শরীরে প্রোটিন, ভিটামিন, খনিজ পদার্থের পরিপূর্ণ যোগান প্রয়োজন। কারণ সুস্থ হওয়ার পর শারীরিক সিস্টেমে যে ঘাটতি তৈরী হয়ে, এই উপাদান গুলি পুনরায় সেটা আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে।

করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর স্বাদ ও গন্ধের অনুভূতি চলে যায়। এটি অন্যতম একটি প্রধান লক্ষণ। এর ফলে আমাদের খিদের ওপর প্রভাব পড়ে। প্রয়োজনীয় ও পরিমান মতো খাদ্য রোগী গ্রহণ করতে পারে না যার ফলে দেখা দেয় শারীরিক দুর্বলতা। তাই এই সময়ে যেটুকু খাবার খাওয়া সম্ভব সেই খাবার যেনো হয় স্বাস্থ্যগুনে সম্পন্ন ও পুষ্টিকর।

ঘুম থেকে ওঠার পর দিনের শুরুতেই অ্যান্টিঅক্সিডন্ট সমৃদ্ধ , রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এমন খাবার খাওয়া প্রয়োজন। কোভিড রোগে চলাকালীন দিনের শুরুতে রসুন, ৩০ মিলি লিটার আমলকি ও অ্যালোভেরা জুস, জিরা ও জোয়ান ভেজানো জল বা মেথি ভেজানো জল বা দারচিনি ভেজানো জল খাওয়া যেতে পারে। এরপর সকালে ৫ টি আমন্ড, ২ টি আখরোট, ১ টি খেজুর খাওয়া যায়, এর সঙ্গে একটু মরসুমি ফল খেলে আরও ভালো। ব্রেকফাস্টে আমন্ড মিল্কের সাথে ওটস মিল খেতে পারেন, চিনির পরিবর্তে ব্যবহার করুন গুড়। সঙ্গে খেতে পারেন কয়েকটি ডিমের সাদা অংশ। শরীরকে ঠান্ডা ও হাইড্রেটেড রাখার জন্য খেতে পারেন ডাবের জলও।

লাঞ্চে এনার্জির জন্য কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার প্রয়োজন। লাঞ্চে ব্রাউন রাইস, মিষ্টি আলু , গমের রুটি খাওয়া চলতে পারে। প্রোটিনের জন্য কলাইয়ের ডাল, মাংস, মাছ খাওয়া যেতে পারে। এর থেকে প্রয়োজনীয় অ্যামিনো অ্যাসিডও পাওয়া যায়। দু এক রকমের ফাইবার , ভিটামিন, মিনারেল সমৃদ্ধ মরসুমি সবজি ডায়েটে রাখতে । লাঞ্চ ও ডিনারের মাঝখানে ভিটামিন সি সম্বৃদ্ধ ফল যেমন কমলালেবু, আঙ্গুর, কিউই খাওয়া যেতে পারে। এর পাশাপশি হলুদ দেওয়া দুধ, আদা চা, বা গ্রীন টি খাওয়া যেতে পারে।

ডিনারে হাই প্রোটিন সম্বৃদ্ধ খাবার খাওয়া দরকার। বোন ব্রথ সুপ, ডিম, গ্রিলড ফিশ, ব্রকলি, সবজি ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে। ঘুমানোর কমপক্ষে ৩ থেকে ৪ ঘন্টা আগে ডিনার সেরে ফেলতে হবে। এবং এই সময়ে প্যাকেটজাত খাবার, প্রিজার্ভড ফুড, ভাজাভুজি সম্বৃদ্ধ খাবার, কুকিজ, ক্যাফিন, জাঙ্ক ফুড, অ্যালকোহল, ও ধূমপান করা থেকে বিরত থাকা উচিত।