🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বুধবার, ২ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ১৬ জুন, ২০২১ ৷

বিজ্ঞানীদের সাফল্য, খাবার টেবিলে ফিরবে ‘বাতাসি’

Mymensing news
❏ সোমবার, মে ২৪, ২০২১ ফিচার

কামরুজ্জামান মিন্টু, স্টাফ রিপোর্টারঃ বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিএফআরআই) বিজ্ঞানীরা কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে বিলুপ্তপ্রায় বাতাসি মাছের পোনা উৎপাদনে সফল হয়েছেন। বগুড়া জেলার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহারে অবস্থিত ইনস্টিটিউটের প্লাবনভূমি উপকেন্দ্রে গবেষণায়  সাফল্য এসেছে। এর আগেও আরও ২৫ প্রজাতির বিলুপ্তপ্রায় দেশি মাছের প্রজনন ও চাষাবাদ কৌশল ইতোমধ্যে উদ্ভাবন করেছে বিজ্ঞানীরা।

ইনস্টিটিউট সূত্র জানায়, গবেষণার আওতায় চলতি মে মাসে বাতাসি মাছকে হরমোন ইনজেকশন দেওয়া হয়। হরমোন প্রয়োগের ১২-১৫ ঘণ্টা পর বাতাসি মাছ ডিম ছাড়ে এবং ২৩-২৫ ঘণ্টা পরে নিষিক্ত ডিম থেকে রেণু পোনা উৎপাদিত হয়। ডিম নিষিক্তের হার ছিল শতকরা প্রায় ৭৩ ভাগ। কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে বাতাসি মাছের রেণু বর্তমানে প্লাবনভূমি উপকেন্দ্রের হ্যাচারিতে প্রতিপালন করা হচ্ছে।

গবেষক দলে ছিলেন- প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. ডেবিড রিন্টু দাস, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান ও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মালিহা খানম।

বিএফআরআই সূত্রে জানা যায়, বাতাসি মাছের বৈজ্ঞানিক নাম Notropis Atherinoides । এটি দৈর্ঘ্যে সর্বোচ্চ ১৫ সেন্টিমিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে। এর দেহ চ্যাপ্টা ও ওপরের চোয়াল নিচের চোয়ালের চেয়ে কিছুটা লম্বা। প্রতি ১০০ গ্রাম খাবার উপযোগী বাতাসি মাছে পটাশিয়াম ৬১০ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ৪০০ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেশিয়াম ২০০ মিলিগ্রাম, জিঙ্ক ১৪.৪ মিলিগ্রাম, আয়রন ৩৩ মিলিগ্রাম এবং ম্যাঙ্গানিজ ২০০ মিলি গ্রাম রয়েছে। যা অন্যান্য দেশি ছোট মাছের তুলনায় অনেক বেশি। জিঙ্ক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

এই প্রজাতির মাছ বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল এবং মিয়ানমারে পাওয়া যায়। বর্তমানে বিলুপ্তপ্রায়  পিয়ালী, কাজলি, কাকিলা, রানী ও গাঙ টেংরাসহ আরো আটটি মাছ নিয়ে গবেষণা চলছে।

গবেষক দলের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. ডেভিড রিন্টু দাস জানান, যমুনা ও আত্রাই নদীসহ বিভিন্ন উৎস থেকে বাতাসি মাছের পোনা সংগ্রহ করে বগুড়ার সান্তাহার প্লাবনভূমি উপকেন্দ্রের পুকুরে তা নিবিড়ভাবে প্রতিপালন করা হয়। ওই সময় বাতাসি মাছের খাদ্যাভ্যাস পর্যবেক্ষণ করে সে অনুযায়ী খাবার সরবরাহ করা হয়। একটি পরিপক্ষ বাতাসি মাছের খাদ্যনালিতে শতকরা ৮৬ ভাগ প্লাংটন ও ১৪ ভাগ অন্যান্য খাদ্যবস্তুর উপস্থিতি লক্ষ্য করা হয়। এছাড়া বছরব্যাপী জিএসআই ও হিস্টোলজি পরীক্ষণের মাধ্যমে বাতাসি মাছের সর্বোচ্চ প্রজনন মৌসুম নির্ধারণ করা হয় মে-জুলাই মাস। এর ডিম ধারণ ক্ষমতা আকার ভেদে ১২০০-২৫০০টি। একটি পরিপক্ষ স্ত্রী বাতাসি মাছ ৪ থেকে ৬ গ্রাম ওজনের হলেই প্রজনন উপযোগী হয়।

তিনি আরও জানান, পরিবেশ বিপর্যয়সহ নানা কারণে বাতাসি মাছ জলাশয়ে এখন আর তেমন পাওয়া যায় না। ক্রমান্বয়ে মাছটি বিপন্নের তালিকায় চলে গেছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে বিলুপ্তপ্রায় বাতাসি মাছ পুনরুদ্ধারে গবেষণার মাধ্যমে প্রজনন কৌশল উদ্ভাবন করা হয়েছে। ফলে মাছটি চাষ করা সম্ভব হবে।

বিএফআরআই এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. শাহা আলী বলেন, গবেষকরা গত দুই বছর গবেষণা করে গত ১৯ মে কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে বাতাসি মাছের রেণু উৎপাদনে সফলতা পেয়েছে। তবে প্রচুর রেণু উৎপাদনের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে চাষাবাদের আওতায় আনতে আরো একবছর সময় লাগবে। ফলে বাজারে পাওয়া যাবে বিলুপ্তপ্রায় বাতাসি মাছ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বিএফআরআই) মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ বলেন, দেশীয় মাছ সংরক্ষণ ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিএফআরআই ময়মনসিংহের স্বাদুপানি কেন্দ্রে ২০২০ সালে একটি ‘লাইভ জিন ব্যাংক’ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। বিলুপ্তপ্রায় মাছ পুনরুদ্ধার করার লক্ষ্যে ইনস্টিটিউটের গবেষণা কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব বিলুপ্তপ্রায় মাছের প্রজনন ও পোনা উৎপাদন কৌশল উদ্ভাবনের মাধ্যমে চাষিরা এসব মাছ চাষাবাদ করবে।

দেশীয় মাছ সংরক্ষণ এবং পোনা উৎপাদনে গবেষণায় অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট ২০২০ সালে ‘একুশে পদক’ লাভ করেছে।