🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বুধবার, ২ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ১৬ জুন, ২০২১ ৷

এ কেমন শত্রুতা! 

Mymensing news
❏ মঙ্গলবার, মে ২৫, ২০২১ ময়মনসিংহ

কামরুজ্জামান মিন্টু, স্টাফ রিপোর্টারঃ গত ২৫ বছর যাবত আমি মাছ চাষ করি। আমার সাথে কারো শত্রুতা থাকলেও ফিসারীতে বিষ কিংবা গ্যাস ট্যাবলেট দিয়ে মাছ নিধন করেনি। ব্যাংক থেকে ৪০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে মাছ চাষ করছি। এরমধ্যে ২৫ লাখ টাকার মাছ পানিতে মরে ভেসে উঠেছে। এখন ব্যাংক থেকে ঋণ পরিশোধ কিভাবে করবো। এভাবেই
হতাশার সুরে কথাগুলো বলতে থাকেন ফিসারীর মালিক আজিজুর রহমান আজিজ।

সোমবার (২৪ মে) সকালে ময়মনসিংহ সদর উপজেলার ৬ নম্বর চর ঈশ্বরদিয়া ইউনিয়নের চরবিলা গ্রামের পুটামারা এলাকার ফিসারীতে মরা অবস্থায় মাছগুলো ভেসে ছিলো। এর আগে রবিবার দিবাগত রাতে পানিতে গ্যাস ট্যাবলেট দিয়ে মাছ নিধন করা হয়েছে।

ফিসারীর মালিক আজিজুর রহমান আজিজ জানান, প্রতিদিন রাতে ঘুম ভাঙ্গলেই ফিসারী দেখতে যাই। গতকালও রাত ২টার দিকে গিয়ে দেখেছি সব ঠিকঠাক ছিল। সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি সব মাছ মরে পানিতে ভেসে উঠছে। এসময় আমার ডাকচিৎকারে বাড়ির লোকজন ও প্রতিবেশি এসে আমাকে শান্তনা দেয়। মাছ পানি থেকে তোলার সময় মাছ নিধনের অ্যালুমিনিয়াম ফসফেট নামক একটি গ্যাস ট্যাবলেটের খোলস পাওয়া যায়। কে এমন কাজ করতে পারে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমি দুইজন লোককে সন্দেহ করেছি। তবে নাম এখনই প্রকাশ করবোনা।

আজিজুর রহমান আজিজের ছেলে ফজলে রাব্বি শাওন বলেন, কিছু লোকের সাথে মাছ নিয়ে আমার সাথে মনোমালিন্য ছিলো। মাছ বিক্রির জন্য ইতিমধ্যে আরতদারদের সাথে চুক্তি করে ২০ হাজার টাকা বায়না নিয়েছিলাম। মাছ দুই একদিনের মধ্যে দেয়ার কথা ছিল। আজই আমার সব মাছ গ্যাস ট্যাবলেট দিয়ে মেরে ফেলছে। পরিবারের সাথে আলোচনা করে তাদের নাম উল্লেখ করে মামলা করবো।

এ বিষয়ে ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি ফিরোজ তালুকদার বলেন, থানায় এখন পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।