🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বুধবার, ২ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ১৬ জুন, ২০২১ ৷

আশুলিয়ায় চলন্ত বাসে নারীকে গণধর্ষণ, আটক ৬

atok
❏ শনিবার, মে ২৯, ২০২১ ঢাকা

তুহিন আহামেদ, আশুলিয়া প্রতিনিধি : ঢাকার আশুলিয়ায় চলন্ত বাসে এক নারীকে গণধর্ষণের অভিযোগে ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া ঘটনায় বাসটিও জব্দ করা হয়েছে। ভোক্তভোগী ওই নারী তার বোনের বাসা মানিকগঞ্জ থেকে নিজ বাসা নারায়নগঞ্জে ফিরছিলেন।

শনিবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেন আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (ওসি অপারেশন) আব্দুর রাশিদ। এরআগে শুক্রবার দিবাগত রাত পৌণে ১২টার দিকে আশুলিয়া-সিএন্ডবি বাইপাস সড়কের আশুলিয়া গরুর হাট এলাকায় গণধর্ষণের এ ঘটনা ঘটে। ঘটনায় ভোক্তভোগী নারী বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

আটককৃতরা হলো- বগুড়ার ধুনট উপজেলার খাটিয়ামারি এলাকার তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে সোহাগ (২৫), একই এলাকার সুলতান মিয়ার ছেলে সুমন (২৪), একই জেলার ধুপচাচিয়া উপজেলার জিয়ানগর এলাকার সামছুল ইসলামের ছেলে সাইফুল ইসলাম (৪০), ঢাকার তুরাগ থানাধীন গুলবাগ ইন্দ্রপুর ভাসমান এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে আরিয়ান (১৮), কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানাধীন তারাগুনা এলাকার মৃত আতিয়ারের ছেলে সাজু (২০), নারায়নগঞ্জের বন্দর থানাধীন ধামঘর এলাকার জহুর উদ্দিনের ছেলে মনোয়ার (২৪)। এরা সকলেই তুরাগ থানাধীন কামারপারা ভাসমান এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল-নবীনগর মহাসড়কে মিনিবাস চালাতো।

পুলিশ জানায়, বোনের বাসা মানিকগঞ্জ থেকে নারায়নগঞ্জে ফেরার পথে রাত ৯টার দিকে আশুলিয়ার নবীনগর বাসস্ট্যান্ড থেকে টঙ্গী যাওয়ার উদ্দেশ্যে নিউ গ্রাম-বাংলা পরিবহন নামের একটি যাত্রীবাহি মিনিবাসে উঠে ওই নারী। পরে বাসটিতে থাকা সকল যাত্রীদের কৌশলে নামিয়ে দেয় হেলপার ও চালক। বেশ কিছুদূর বাসটি চলার পর টঙ্গী না গিয়ে পুনরায় নবীনগরের দিকে চলতে থাকে। নবীনগরে আসার পথে আশুলিয়া বাজার গরুর হাট এলাকায় পৌছলে বাসে থাকা চালক ও হেলপার সহ ছয়জনে মিলে ওই নারীকে ধর্ষণ করে। এসময় ভোক্তভোগীর সাথে থাকা ব্যক্তির চিৎকারে টহল পুলিশ বিষয়টি বুঝতে পেরে বাসটি থামায়। পরে পুলিশ বাসে থাকা ছয়জনকে আটক করে এবং ভোক্তভোগীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

আশুলিয়া থানার ওসি (অপারেশন) আব্দুর রাশিদ জানান, ভোক্তভোগীর দায়েরকৃত মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখিয়ে চার দিনের রিামন্ড আবেদন করে দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়। ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। ভোক্তভোগী নারীকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি)তে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে আইনী প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে বলেও জানান তিনি।