🕓 সংবাদ শিরোনাম

যেকোনো সময় সারা দেশে ‘শাটডাউন’ ঘোষণা : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীসারা দেশে ১৪ দিনের ‘শাটডাউনের’ সুপারিশশাহজাদপুরে আনসার সদস্যের বিরুদ্ধে আদিবাসী নারীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগব্র্যাক-এশিয়ার পর ঢাকা ব্যাংক থেকেও নিষিদ্ধ ইভ্যালি!বগুড়ায় করোনা আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা একদিনে সব রেকর্ড ভেঙেছেসন্ধ্যা হলেই সৌর বিদ্যুতে আলোকিত হবে মির্জাপুর পৌরসভা২৪ ঘন্টায় শনাক্ত ছাড়াল ৬ হাজার, মৃত্যু ৮১ জনেরচুয়াডাঙ্গায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ার আশঙ্কাদেশে খাদ্যের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে: খাদ্যমন্ত্রীসিনহা হত্যা মামলার পলাতক আসামি কনস্টেবল সাগর দেবের আত্মসমর্পন

  • আজ বৃহস্পতিবার, ১০ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ২৪ জুন, ২০২১ ৷

লাঠি হাতে কাদের মির্জার মিছিল!

kader mirza
❏ রবিবার, মে ৩০, ২০২১ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার আলোচিত মেয়র আবদুল কাদের মির্জা তার অনুসারীদের নিয়ে মিছিল করেছেন। মিছিল থেকে ডিসি,এএসপি, ইউএনও ও ওসির চামড়া তুলে নেওয়ার স্লোগান দেন তিনি।

রবিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে মেয়র কাদের মির্জার নেতৃত্বে মিছিলটি বসুরহাট বাজারের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে বঙ্গবন্ধু চত্বরে এক সংক্ষিপ্ত সভায় মিলিত হয়।

মিছিলটি বসুরহাট বাজারের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণের সময় কাদের মির্জাকে লাঠি হাতে নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে দেখা যায়।

মিছিল পরবর্তী সভায় কোম্পানীগঞ্জ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) শামিম কবির, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জিয়াউল হক মীর, সহকারী কমিশনার ভূমি (এসিল্যান্ড) সুপ্রভাত চাকমা ও অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনির প্রত্যাহার দাবি করেন তিনি।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের দিকে ইঙ্গিত করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাদের প্রত্যাহারের দাবি জানান কাদের মির্জা। অন্যথায় পৌরসভা চত্বরে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি পালনের হুমকি দেন তিনি।

কাদের মির্জা তার অনুসারীদের নিয়ে স্লোগান দেন, ‘ওসি রইন্যার (ওসি মীর জাহেদুল হক রনি) চামড়া, তুলে নেব আমরা’, ‘শামিমের (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামিম কবির) চামড়া, তুলে নেব আমরা’, ‘ইউএনওর চামড়া, তুলে নেব আমরা’, ‘ডিসির চামড়া তুলে নেব আমরা’, ‘এসপির চামড়া, তুলে নেব আমরা’।

লাঠি হাতে মিছিলের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেন, এটা আমাদের প্রতীকী প্রতিবাদ ছিল। গত ৯ মার্চ পৌরসভায় ২ হাজার রাউন্ড গুলি বর্ষণ করা হয়। প্রশাসন আজ পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করে নাই। শনিবার সন্ত্রাসীরা আমার ১৫ জন নেতাকর্মীকে গুলিবিদ্ধ করেছেন, তার বিচার পাইনি। এসবের প্রতীকী প্রতিবাদ হিসেবে মিছিলে লাঠিসহ অংশগ্রহণ করেছি।

কাদের মির্জা বলেন, এখানে প্রশাসনের ছত্রচ্ছায়ায় তাণ্ডব চালাচ্ছে। ডিসি-এসপির নির্দেশে টাকার জন্য প্রশাসন তাদেরকে সমর্থন দিচ্ছে। ওরা এমপি একরামের রাজত্ব এখানে কায়েম করতে চায়

কাদের মির্জা তার প্রতিপক্ষের কয়েকজন নেতাকর্মীদের নাম উল্লেখ করে অনুসারীদের নিজ নিজ এলাকায় সংগঠিত হয়ে মিছিল সমাবেশ করার নির্দেশ দেন।

তিনি আরও বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের সাহেবের কথা এখন বললাম না। আমার সঙ্গে যে সব ওয়াদা করেছেন, সেগুলো ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পূরণ করেন। না হলে আপনার বিরুদ্ধেও চলবে, আপনার বউয়ের বিরুদ্ধেও চলবে। ছাড়ি (ছেড়ে) দেব না।’

কাদের মির্জা বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের সাহেবের সঙ্গে আমার কিছু দূরত্ব ছিল তাও কেটে গেছে। প্রশাসন আমাকে ও আমার ভাই ওবায়দুল কাদের সাহেবকে সরিয়ে কোম্পানীগঞ্জে একরামের রাজত্ব কায়েম করতে চায়। প্রশাসন একতরফা তাণ্ডব চালাচ্ছে। আমরা রক্ত দিয়ে হলেও প্রতিরোধ করবো।’