ফেনীতে ইউপি সচিবের বিরুদ্ধে জন্মসনদের নামে বাড়তি টাকা নেয়ার অভিযোগ

Feni news
❏ সোমবার, মে ৩১, ২০২১ চট্টগ্রাম

আবদুল্লাহ রিয়েল, ফেনী প্রতিনিধি: অনলাইন জন্মসনদ সংশোধন করে দেয়ার নামে সরকার কর্তৃক ধার্যকৃত ফিসের ছেয়ে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার চরচান্দিয়ার ইউপি সচীব কাজী বেলাল হোসেনের বিরুদ্ধে।

রবিবার (৩০মে) সকালে বাড়তি অর্থ নিয়েও সনদ শংশোধন না করে দেয়ায় কয়েকজন সেবাগ্রহীতার তোপের মুখে পড়েন তিনি।পরে চেয়ারম্যান মিলন সচীব কক্ষে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। কিন্তু এরপরও তিনি অতিরিক্ত ফি নেয়া বন্ধ করেননি। জন্মসনদ সংক্রান্ত সরকারীভাবে ফি ৫০ থেকে ১০০ টাকা নেয়ার কথা থাকলেও তিনি ৩০০ থেকে ১০০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করছেন বলে অভিযোগ করেছেন চরচান্দিয়া ইউনিয়নের বেশ কয়েকজন বাসিন্ধা। এব্যাপারে সচীব বলেন সরকারী ফিসের বাইরেও বাড়তি ইন্টারনেট বিল, যাতায়াত খরচ লাগে। তাই বাড়তি টাকা নেয়া।

সরেজমিনে অনুসন্ধান করে দেখা যায়, সচীব কাজী বেলাল হোসেন অনলাইন জন্মনিবন্ধন সংশোধন করার জন্য একেকজনের কাছ থেকে ৩শত থেকে ৫শত টাকা গ্রহণ করছেন কিন্তু কাউকে রশীদ দিচ্ছেন না। রবিবার সকালে থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত অন্তত ৩০জন জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করাতে আসেন। প্রতেকের কাছ থেকে অতিরিক্ত ২শত থেকে ৪শত টাকা নিতে দেখা যায়। কিন্তু কাউকে রশীদ দিতে দেখা যায়নি।

৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্ধা আব্দুর রহমান বলেন, জন্ম সনদ সংশোধন করার জন্য দুই দফায় সাড়ে ৭শত টাকা নিয়েছে কিন্তু সংশোধন করে দেয়নি। ৫নং ওয়ার্ড বাসিন্দা নাছির উদ্দিন জানান, তিনি জন্ম নিবন্ধনে বয়স সংশোধন করার জন্য ৬শত টাকা দিয়েছেন। দীর্ঘদিন পার হয়ে গেলেও তিনি সংশোধিত সনদ পাননি। শাহজাহান বলেন, বিগত ৬মাস ধরে মেয়ের জন্ম নিবন্ধন করানোর জন্য পরিষদ চত্বরে ঘুরছি। ৫০টাকা সরকারী ফিসের পরিবর্তে ৩শত টাকা নিয়েছে। তবুও সনদ করে দিচ্ছেনা। বারবার উনি সার্ভারের সমস্যা দেখায়। এছাড়াও একজন মহিলা জানান, তার স্বামীর জন্মনিবন্ধনে শুধুমাত্র নামের ভুল সংশোধন ভুল সংশোধন করার জন্য ৮শত টাকা নিয়েছে।

এব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন মিলন বলেন, অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিষয়ে প্রতিদিন ভুরি ভুরি অভিযোগ আসে উনার বিরুদ্ধে। উনাকে কয়েকবার এবিষয়ে বলা হলেও উনি কর্ণপাত করেননি। আজকে সকালে জনগনের তোপের মুখে পড়লে আমি গিয়ে পরিস্থিতি স্বভাবিক করি।

এবিষয়ে ইউপি সচীবকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি অতিরিক্ত ফি নেয়ার বিষয়টি স্বীকার করে সরকারী ফি ছাড়াও কিছু অতিরিক্ত খরচের কথা বলেন। তবে রশীদের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন রশীদ দেয়া হয়েছে। কিছু হয়ত ব্যস্ততার কারনে বাদ পড়তে পারে। তবে কম্পিউটারে হিসেব করে রেখেছি।