ব্রিজ দখল: পথচারীদের ভোগান্তি

Keranigonj news
❏ বুধবার, জুন ৯, ২০২১ ঢাকা

কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি: নিরাপদে ও নির্বিঘ্নে পারাপারের জন্য করা হয়েছে ব্রিজ। অথচ ঢাকার কেরানীগঞ্জের আগানগর গুদারাঘাট জোড়াব্রিজ এলাকায় ব্রিজ যেন পরিণত হয়েছে বাজারে। এখানে পথচারীদের পারাপারের জন্য আছে সরু একটি ব্রিজ। এ ব্রিজটি দিয়ে প্রতিদিন লক্ষাধিক মানুষের যাতায়াত। ব্রিজটির এক পাশ অবৈধভাবে দখল করে বসেছে ফলের দোকান। এতে ব্রিজ দিয়ে পথচারীরা স্বাচ্ছন্দে চলাফেরা করতে পারছে না। হাঁটতে গিয়ে গায়ের সঙ্গে গা লেগে যায়।

তাছাড়া ফলের দোকানের উচ্ছিষ্ট হিসেবে আম ও লিচুর ঝুড়িসহ বিভিন্ন ময়লা দিয়ে খাল পরিপূর্ণ।

ব্রিজটি সম্প্রতি ঘুরে দেখা যায়, গার্মেন্টসপল্লী খ্যাত পূর্ব আগানগর গুদারাঘাটে লক্ষাধিক শ্রমিক কাজ করেন। এই শ্রমিকদের বেশিরভাগই কালীগঞ্জ বাজার, কৈবর্তপাড়া, চরকুতুব, জিয়া নগরের আশপাশে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন। এসব শ্রমিক-কর্মচারী সহ প্রতিদিন লক্ষাধিক লোককে এই ব্রিজ ব্যবহার করে। ব্রিজটির একপাশ অবৈধভাবে দখল করে বসেছে একাধিক ফলে দোকান। এসব দোকানের কারণে পথচারীরা ব্রিজ দিয়ে সহজে হাঁটতে পারছিলেন না।

এই ব্রিজ নিয়মিত ব্যবহারকারী স্থানীয় বাসিন্দা বজলুল হাকিম বলেন, বিকেল-সন্ধ্যেবেলা দোকানের ভিড়ের জন্য এখান দিয়ে হাঁটা যায় না। কোনো না কোনো মহল এখানে দোকান বসিয়ে হকারদের কাছ থেকে প্রতিদিন চাঁদা নিচ্ছে, এই অবৈধ দখল ব্যবসা পরিচালনা করছে।

সাদিয়া আক্তার নামে এক গার্মেন্টস কর্মী জানান, এ ব্রিজে হকাররা দোকান নিয়ে বসায় ঠিকভাবে হাঁটা চলা করা যায় না। ব্রিজটি অনেক সরু লাগে। এখানে সব সময় ভিড় লেগে থাকতে দেখা যায়। এক প্রকার বাধ্য হয়ে আমাদের ব্রিজটি ব্যবহার করতে হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, এখানে দোকানপাট বসিয়ে ব্রিজের ওপর জনসাধারণের চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা নতুন নয়, এ দোকানপাট কয়েক বছর ধরে চলছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বারসহ গণ্যমান্য সকলেই এ বিষয়ে জানে কিন্তু কেউ কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করে না।

এবিষয় কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত দেবনাথ বলেন, জনগণের চলাচলের জন্য ব্রিজ, এটি রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি। এখানে অবৈধভাবে দোকানপাট স্থাপন করে জনগণের চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা যাবে না।

এছাড়া ময়লা-আবর্জনা ফেলে খাল ভরাট করা দণ্ডনীয় অপরাধ। যদি এগুলো কেউ করে থাকে তাহলে তদন্তসাপেক্ষে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।