বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতুর ৭২ ভাগ নির্মাণকাজ সম্পন্ন

setu
❏ বৃহস্পতিবার, জুন ১০, ২০২১ বরিশাল

সৈয়দ বশির আহম্মেদ, পিরোজপুর প্রতিনিধি: বরিশাল-খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের পিরোজপুরের বেকুটিয়া-কুমিরমারা পয়েন্টে কচা নদীর উপর অস্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতুর নির্মাণ কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। ইতিমধ্যে সেতুর ৭২ ভাগ নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন চলছে সেতুর সুপার স্ট্রাকচার এবং এপ্রোচ সড়কের নির্মাণকাজ। আগামী বছরের জুনে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলবাসীর স্বপ্নের বেকুটিয়া সেতু উদ্বোধনের আশা করছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

সেতুটি চালু হলে বরিশাল-পিরোজপুর-বাগেরহাট-খুলনা ও মোংলা সমুদ্র বন্দর যাতায়াতে সময় অনেক কমবে। এতে খুশি বেকুটিয়া ফেরিঘাটে দুর্ভোগের শিকার পরিবহন শ্রমিক ও যাত্রীসহ স্থানীয় মানুষ।

গত শনিবার সকালে কচা নদীর উপর বেকুটিয়া সেতু নির্মাণের সার্বিক অগ্রগতি সরেজমিন পরিদর্শন করেন সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের (সওজ) প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুস সবুর।

এ সময় বরিশাল জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আবু হেনা মো. তারেক ইকবাল এবং প্রকল্প ব্যবস্থাপক মাসুম মাহমুদ সুমনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। পরিদর্শনকালে প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি এবং কাজের গুণগত মানে সন্তোষ প্রকাশ করেন প্রধান প্রকৌশলী।

সেতু বিভাগ জানায়, বেকুটিয়া-কুমিরমারা পয়েন্টে কচা নদীর উপর অস্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০১৮ সালের জুলাই মাসে। জি টু জি পদ্ধতিতে সেতু নির্মাণের দায়িত্ব পায় চীনের ‘চায়না রেলওয়ে সেভেনটিন ব্যুরো গ্রুপ কোম্পানী লিমিটেড’। সেতু নির্মাণে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৮৯৮ কোটি টাকা। এরমধ্যে ৬৫৪ কোটি টাকা গ্রান্ড অনুদান দিয়েছে চীন সরকার। বাকি ২৪৪ টাকার যোগান দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। ৪২৯ মিটার ভায়াডাক্টসহ সেতুর দৈর্ঘ্য ১ হাজার ৪২৭ মিটার এবং প্রস্থ ১০ দশমিক ২৫ মিটার (ডবল লেন)। মূল সেতুর দৈর্ঘ্য ৯৯৮ মিটার। ১০টি পিলার এবং ৯টি স্প্যানের উপর দাঁড়িয়ে আছে বক্স গার্ডার টাইপ এই সেতু। ৯টি স্প্যানের ৭টি ১২২ মিটার এবং ৭২ মিটার স্প্যান রয়েছে ২টি। গত ৩ বছরে সেতুর ৭২ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

সেতু নির্মাণের সার্বিক অগ্রগতি সরেজমিন পরিদর্শন করে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের (সওজ) প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুস সবুর বলেন, করোনাকালেও দিনরাত দুই শিফটে কাজ চলছে। আগামী বছর জুনে প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই এই সেতু যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়ার প্রত্যাশা রয়েছে।

সওজ বরিশাল জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আবু হেনা মো. তারেক ইকবাল বলেন, বরিশাল-খুলনা সরাসারি সড়ক যোগাযোগে সব শেষ প্রতিবন্ধকতা বেকুটিয়ার কচা নদী। সরকারের উন্নয়ন ধারাবাহিকতায় কচা নদীর উপর সেতু নির্মাণ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এই সেতু চালু হলে খুলনা, মোংলা ও বাগেরহাট অঞ্চলের সাথে পায়রা সমুদ্র বন্দর এবং রাজধানী ঢাকার সড়ক যোগাযোগ আরও সহজতর হবে। এতে এই অঞ্চলের ব্যবসা-বাণিজ্য এবং পর্যটনে গতি আসবে বলে আশা করেন তিনি।

অস্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু প্রকল্পের ব্যবস্থাপক ও বরিশাল সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুম মাহমুদ সুমন বলেন, দেশী-বিদেশী প্রকৌশলী ও শ্রমিকরা দিনরাত সেতু নির্মাণ কাজ করছে। আগামী বছরের জুনে সেতু উদ্বোধন হলে বরিশাল এবং খুলনা বিভাগের মধ্যে সড়ক পথে ট্রাভেল টাইম (যাতায়াত সময়) অন্তত ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘন্টা কমে যাবে এবং সহজ যোগাযোগ প্রতিষ্ঠিত হবে।

বেকুটিয়া ফেরীর যাত্রী সাহেব আলী জানান, বিএনপি সরকারের সময় বারবার এই সেতু নির্মাণের আশ্বাস দিয়েও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলবাসীকে বঞ্চিত করা হয়েছে। বিএনপি যেটা পারেনি, সেটা সম্ভব করে দেখাচ্ছে শেখ হাসিনার সরকার। সরকার প্রধানের সু-নজরের কারণে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এখন জেগে উঠেছে।

এদিকে বেকুটিয়া সেতু নির্মাণে খুশী এলাকাবাসীসহ পরিবাহন শ্রমিক ও যাত্রীরা। সেতুটি চালু হলে বরিশাল-খুলনা রুটে ফেরি বিহীন সরাসরি সড়ক যোগাযোগ চালু হবে বলে তারা জানান। ফেরিঘাটে দীর্ঘ ভোগান্তির অবসান ঘটতে যাওয়ায় আনন্দের জোয়ার বইছে কচা নদীর দুই তীরে। তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে সেতু নির্মাণ কাজ শেষ করার দাবি করেছেন।